প্রত্যেক সন্তানের সর্বশ্রেষ্ট শিক্ষক “মা” -শেখ আফিল উদ্দিন এমপি

178

বেনাপোল প্রতিনিধি : যশোর-১(শার্শা)আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিন বলেন, প্রত্যেক শিশু-ই তার মায়ের কাছ থেকে প্রথম শিক্ষা গ্রহণ করে থাকে। প্রতিটি মা তার সন্তানকে যেমন ভাবে লালন পালন করে যে শিক্ষায় শিক্ষিত করেন ভবিষ্যতেও তিনি সে সন্তান দ্বারা তেমন ফল পেতে থাকবেন। তাই, প্রত্যেক সন্তানের সর্বশ্রেষ্ট শিক্ষক “মা”। বুধবার ৯২৫ জানুয়ারি)বেলা ১১ টার সময় শার্শা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিশু বরণ উৎসবে প্রধাণ অতিথি হিসাবে একথাগুলি বললেন তিনি।
শার্শা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও শার্শা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানিজিং কমিটির সভাপতি মেহেদী হাসানের সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে শেখ আফিল উদ্দিন এমপি আরো বলেন, আমরা প্রত্যেক বাবা-মা সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার সাথে সাথে তাদেরকে চুম্বন করতে থাকি আর তাদেরকে বলতে থাকি তোকে ডাক্তার ইঞ্জিনিয়ার বানাব। তুই-ই আমার শ্রেষ্ঠ সম্পদ। কিন্তু কয়জন করতে পেরেছি? আমরা কেউই কথা রাখে নি। সময় হলে সন্তানদের স্কুলে ভর্তি করে দিই মাত্র, কিন্তু তাদের দেখাশুনা করি না। কেবল স্কুলের শিক্ষকদের উপর নির্ভর করে থাকি। সন্তান স্কুলে আসল কি না, কোথাও আড্ডা দিচ্ছে কি না তার দিকে খেয়াল রাখি না। অধিকাংশরাই বলি’ আমার সন্তানের মেধা ভাল না। এক সময় দেখা যাচ্ছে আমার সন্তান মাদকাশক্ত হয়েগেছে, চুরি করছে, সিনতাই করছে, এলাকার টপ টেরর হয়েগেছে।
সাংসদ শেখ আফিল উদ্দিন ঐসকল বাবা-মা এবং সমাজ গড়ার কারিগরদের দিকে চ্যালেঞ্জ চূড়ে দিয়ে বলেন, মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন মানুষ জন্মের সাথে সাথে প্রায় প্রত্যেক মানুষকে মেধা দিয়ে পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন, আর কিছু সংখ্যক যাদের দেয়নি, তারা কেবল পাগল হয়ে জমিনের উপর ঘুরে বেড়াচ্ছে। যারা স্কুলে যাচ্ছে, কারিগরি শিক্ষা শিখছে’ তাদের প্রত্যেকের মেধা আছে। বিশ্বাষ না হয় আপনার ঐ সন্তানকে আমার কাছে ছেড়ে দেন, আমি বাবা হয়ে সন্তান সমতূল দৃষ্টিতে তাকে শিক্ষা দেব, প্রমাণ করে দেব সকল শিশুর-ই মেধা আছে। প্রমাণ করতে না পারলে হাতে চুড়ি পরে শার্শার এমপি পদ ছেড়ে চলে যাবো। তাই, তিনি প্রত্যেক বাবা-মা এবং শিক্ষক শিক্ষিকাদের প্রতি অনুরোধ করে বলেন এখনি সময় আপনার সন্তানের ভিত মজবুত করতে হবে। আর এটা কেবল মায়ের পক্ষেই সম্ভব। একজন রোগীর জন্য ডাক্তার যেমন প্রেসক্রিপশন দিয়ে ছেড়ে দেন আর বাকি ঔষধ কিনে রোগীকে বা অবিভাবককে নিয়মনীতি মেনে নিজেরটা নিজেরই দেখাশুনা করতে হয়। স্কুলের শিক্ষকদের ভূমিকাও তেমন।
এ সময় সাংসদ শেখ আফিল উদ্দিন আরো বলেন জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়তে তার গুণধর কণ্যা শেখ হাসিনা নিরলসভাবে কাজ করছেন। কিন্তু যেখানে শিক্ষা নাই সেখানে উন্নয়ন দূর্লভ। এসকল দিক বিবেচনা করে সর্বপ্রথম তিনি শিক্ষাখাতকে এগিয়ে নেওয়ার চেষ্ঠা করছেন। কারণ হিসাবে সাংসদ আফিল উদ্দিন বলেন, আজকের শিশুকে সুনাগরিক হিসাবে গড়ে তুলতে পারলে এরাই হবে দেশের ভবিষ্যৎ কর্ণধর, এরাই হবে জাতির ভবিষ্যৎ এমনকি পৃথিবীর শ্রেষ্ট ব্যক্তিত্ব।
এ সময় বিশেষ অতিথি হিসাবে আরো বক্তব্য রাখেন শার্শা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের (ইউ.আর.সি) ইন্সট্রাক্টর ও (এ.ইউ.ই.ও) রফিকুল ইসলাম।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন শার্শা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধাণ শিক্ষক তাজ উদ্দিন আহম্মেদ, সহকারি শিক্ষক তারক চদ্র, কামরুজ্জামান, আব্দুল কাদের, শাহনেওয়াজ, মাজেদা খাতুন, শিরিনা খাতুনসহ সূধীবৃন্দ ও অবিভাবক মন্ডলীরা।
অনুষ্ঠানের শুরুতে শিশুদের ফূল দিয়ে বরণ করে নেন শেখ আফিল উদ্দিন এমপি। পরে তাঁকেও ফুলেল শুভেচ্ছা ও ক্রেস্ট উপহার দেন উক্ত স্কুলের ম্যানিজিং কমিটির সভাপতি মেহেদী হাসান।