সংসদ সদস্য লিটনের দাফন সম্পন্ন

112

সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। তিন দফা জানাজা শেষে বিকেলে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। এদিকে লিটন হত্যার প্রতিবাদে এবং জড়িতদের গ্রেফতারের দাবিতে সুন্দরগঞ্জের বামনডাঙায় অর্ধদিবস হরতাল পালন করা হয়েছে।

এদিকে বামনডাঙা রেলস্টেশনে ট্রেনের নিচে বোমা সদৃশ বস্তু উদ্ধার করা হয়েছে। সেটি বোমা নয় বলে জানিয়েছে সেনাবাহিনীর বোম ডিসপোজাল ইউনিট। এদিকে হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে দুইদিনে ৩২ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

ঢাকায় সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনের দ্বিতীয় জানাযা শেষে সোমবার বিকেলে গাইবান্ধার বামনডাঙার মাস্টার পাড়ায় তৃতীয় ও শেষ দফায় নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারাসহ স্থানীয়রা অংশ নেন। এসময় পুলিশের রংপুর রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক সাংবাদিকদের জানান, হত্যাকাণ্ডে জামায়াতের সম্পৃক্ততার বিষয়টি মাথায় রেখেই মামলার তদন্ত চলছে।

এর আগে বামনডাঙা রেলস্টেশনে ট্রেন আটকে রেখে বিক্ষোভ করলেও জানাজার কারণে আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতাকর্মীরা হরতাল প্রত্যাহার করেন। এদিকে ট্রেনের নিচে বোমা সদৃশ বস্তু দেখে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

এদিকে, রংপুর সেনাবাহিনীর বোমা ডিসপোজাল ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে বস্তুটি বোমা নয় বলে নিশ্চিত করে। পরে ৯ ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর গাইবান্ধা ও রংপুরের সঙ্গে ঢাকার রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক হয়।

শনিবার নিজ বাসায় ঢুকে মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনকে গুলি কোরে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। রোববার রাতে লিটনের পরিবারের পক্ষ থেকে অজ্ঞাতনামা ৫ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়।