জানুয়ারিতে আবারও বাড়তে পারে গ্যাসের মূল্য

169

আগামী বছরের শুরু থেকেই দেশে গ্যাসের দাম বাড়াতে পারে সরকার। রাজস্ব বাড়াতেই বর্তমানের গ্যাসের মূল্যের সাথে শুল্ক ও ভ্যাট যুক্ত করে নতুন মূল্য নির্ধারণ করা হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি) একটি সূত্র।
এবার একইসাথে আবাসিক গ্যাস এবং সিএনজি’র দাম বাড়ানো হবে বলে জানা গেছে। চলতি মাসের শেষে গ্যাসের বর্ধিত নতুন মূল্য ঘোষণা করা হতে পারে, যা আগামী বছরের শুরু থেকে কার্যকর হবে।
রান্নার কাজে গ্যাসের ব্যবহার নিরুৎসাহিত করতে গ্রাহক পর্যায়ে আবাসিকে লাইনে গ্যাসের দাম ৫০ শতাংশ বাড়ানো হতে পারে। জানা গেছে, দেশে গ্যাসের মজুদ কমে আসায় এই সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে সরকার। এর বদলে সরকার এলপি গ্যাস ব্যবহারে সবাইকে উৎসাহিত করতে চাচ্ছে।
এছাড়া সিএনজির মূল্যও ৪৮ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। সিএনজি স্টেশন থেকে অবৈধভাবে শিল্পখাতে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করতেই এই পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে।
বর্তমানে আবাসিক গ্যাস লাইনে সিঙ্গেল বার্নারের (এক চুলা) জন্য মাসে ৬০০ টাকা এবং ডাবল বার্নারের (দুই চুলা) জন্য ৬৫০ টাকা পরিশোধ করতে হয়। গত বছরের ১ সেপ্টেম্বর গ্যাসের মূল্য বাড়ানোর পর এই অঙ্ক নির্ধারণ করা হয়।
এরপর চলতি বছরের ৩০ মার্চ বিতরণ কোম্পানিগুলো নতুন করে গ্যাসের মূল্য বাড়ানোর প্রস্তাব দেয়। তখন প্রতিটি সিঙ্গেল বার্নারের জন্য এক হাজার একশ’ এবং দুই বার্নারের জন্য এক হাজার দুইশ টাকা প্রস্তাব করা হয়। তবে তা এখনো নির্ধারিত হয়নি।
বিইআরসির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মো. মাকসুদুল হক বলেন, রাষ্ট্রীয় কমিশন হিসেবে আমাদেরকে ভোক্তার সুবিধা দেখার পাশাপাশি সরকারের রাজস্ব আয়ের ব্যাপারটাও আমাদেরকে দেখতে হবে। দুই পক্ষের দাবির যৌক্তিকতা মূল্যায়ন করেই গ্যাসের নতুন মূল্যহার নির্ধারণ করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।