‘ইসি গঠনে রাষ্ট্রপতির সিদ্ধান্ত মেনে নেব’

121

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, রাষ্ট্রপতি নির্বাচন কমিশন নিয়ে আলাপ-আলোচনা করবেন। সব দলের সঙ্গে আলোচনা করে তিনি যেভাবে চাইবেন সেইভাবে নির্বাচন কমিশন গঠন করবেন।
শেখ হাসিনা বলেন, ‘মহামান্য রাষ্ট্রপতি কী করেন সেটা আমরা দেখব এবং সেইভাবে আমরা মেনে নেব।’
বৃহস্পতিবার রাতে দশম জাতীয় সংসদের ত্রয়োদশ অধিবেশনে সমাপনী বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা দেখি বিএনপি ভোট কারচুপি নিয়ে কথা বলে, নির্বাচন নিয়ে কথা বলে। নির্বাচন কমিশন কীভাবে হবে সেটা নিয়েও তারা এখন অনেক পরামর্শ দেয়।
তিনি আরো বলেন, আমাদের অভিজ্ঞতা আছে। সেই ১৯৭৮ সালের ‘হ্যাঁ-না’ ভোট অথবা রাষ্ট্রপতি নির্বাচন বা ১৯৮৯ সালের সেই ভোট কারচুপি থেকে শুরু করে মাগুরার সেই নির্বাচন, মিরপুরের নির্বাচন, ঢাকা-১০ আসনের নির্বাচন- প্রত্যেক নির্বাচনের চেহারা আমাদের দেখা আছে।
তিনি আরো বলেন, ‘সমগ্র বাংলাদেশে আর্মি দিয়ে নির্বাচনের একটা প্রহসন করেছিল এবং ভোট চুরি করেছিল বলেই কিন্তু খালেদা জিয়া ক্ষমতায থাকতে পারেনি। ১৫ ফেব্রুয়ারি নির্বাচন করে ৩০ মার্চ জনগণের আন্দোলনের রুদ্ররোষে তাকে পদত্যাগে বাধ্য করেছিল। এই কথাটা সে এখন ভুলে গেছে।’
এ ছাড়া ২০০১ সালে ১ অক্টোবর নির্বাচনে কীভাবে কারচুপি হয়েছিল সেটাও আমাদের জানা আছে। ২০০৬ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকার নিয়ে সে খেলা তারা খেলতে শুরু করেছিল। এ ধরনের ঘটনা যারা ঘটিয়েছেন তাদের মুখ থেকে অনেক পরামর্শ এখন শোনা যায় বলেও ক্ষোভ প্রকাশ করেন শেখ হাসিনা।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নির্বাচনটা অবাধ হোক, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হোক সেটাই চাই। জনগণের ভোট ও ভাতের অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন তো আমিই করেছি। আমরাই করেছি। তার জন্য অনেক লোক জীবন দিয়েছে। আমরা চাই, এই দেশে একটি গণতান্ত্রিক সুষ্ঠু ধারা অব্যাহত থাকুক। তাহলেই এই দেশের অর্থনৈতিক উন্নতি ত্বরান্বিত হবে। আর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে যে উন্নতি হয়, এটা তো দেশের মানুষই উপলব্ধি করছে।’