নড়াইলে শহীদ মিজান ও মতিয়ার’র স্মৃতিচারণ সভা

218


নড়াইলকণ্ঠ ॥
নড়াইলের মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিরক্ষা পরিষদের আয়োজনে বীরমুক্তিযোদ্ধা শহীদ শেখ মিজানুর রহমান ও মতিয়ার রহমান স্মরণে স্মৃতিচারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (৭ ডিসেম্বর) বিকাল সাড়ে ৩টায় জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স হল রুমে মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিরক্ষা পরিষদের আহবায়ক অ্যাডভোকেট ফজলুর রহমান জিন্নাহ্’র
nk_november_2016_221সভাপতিত্বে এ স্মৃতিচারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নড়াইলের সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ বীরমুক্তিযোদ্ধা মো: আবুল বাশার মুন্সি। বিশেষ অতিথি ছিলেন নড়াইলের পুলিশ সুপার সরদার রকিবুল ইসলাম, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এস, এম গোলাম কবীর, নড়াইল পৌর মেয়র মো: জাহাঙ্গীর হোসেন বিশ্বাস ও পিপি মো: এমদাদুল ইসলাম প্রমুখ।
বক্তরা শহীদ শেখ মিজানুর রহমান ও মতিয়ার রহমানের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বলেন, ১৯৭১ সালের ৭ ডিসেম্বর নড়াইল শহরকে হানাদার মুক্ত করতে মাছিমদিয়া গ্রামে মুক্তিযোদ্ধারা হানা দেয়। এক পর্যায়ে তৎকালিন নড়াইল মহাকুমার পিস কমিটির নেতৃবৃন্দের হাতে ধরা পড়েন শেখ মিজানুর রহমান ও মো: মতিয়ার রহমান। ঘটনাস্থলেই নরপিচাশ সকুনেরা আমাদের প্রাণের শেখ মিজানুর রহমানকে নৃশংসভাবে হত্যা করে। ঐশকুনিরা তাঁকে হত্যা করেই খ্যান্ত হয়নি, তাঁকে বাশের সাথে বেঁধে ঝুলিয়ে তৎকালিন মহাকুমা শহরের প্রতিটি রাস্তায়, পাড়ায় পাড়ায় উল্লাস করিয়ে ঘুরিয়ে নিয়ে বেড়ায়। একই সাথে আমাদের প্রাণের ভাই আতিয়ার রহমানকে জীবিত রক্তাক্ত অবস্থায় বেধে আনে। পরে নড়াইল চৌরাস্তায় সাধনা ঔযালয়ের সামনে এনে পলি ফটোর মালিক আব্দুর রহমান ওরফে সুবোধ লস্কর দিয়ে ছবি তোলার পর ডাক বাংলোতে এনে রাখে। পরে আতিয়ার রহমানকেও নৃসংশভাবে হত্যা করা হয়। পরে লাশ গুম করে ফেলে। নিহত মিজান লোহাগড়ার জয়পুর গ্রামের সন্তান।