বিজয় সরকারের ৩০তম প্রয়াণ দিবস পালনে প্রস্তুতিসভা

144

নড়াইল কণ্ঠ : অসাম্প্রদায়িক চেতনার সুরস্রষ্টা চারণ কবি বিজয় সরকারের ৩০তম প্রয়াণ দিবস পালন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (২৩ নভেম্বর) বেলা সাড়ে ১২টায় জেলা প্রশাসকের সভাকক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক মো: হেলাল মাহমুদ শরীফের সভাপতিত্বে ৪ ডিসেম্বর চারণ কবি বিজয় সরকার ৩০তম প্রয়াণ দিবস পালন উপলক্ষে অনুষ্ঠিত প্রস্তুতিমূলক সভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের প্রশাসক জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস, প্রফেসর মুন্সি হাফিজুর রহমান, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী , অতিরিক্তি জেলা প্রশাসক ( রাজস্ব) মো: রায়হান কাওছার, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার অ্যাডভোকেট এসএ মতিন, সদরের ইউএনও নাছিমা খাতুন, নড়াইল প্রেসক্লাবের সভাপতি এনামুল কবীর টুকুসহ জেলার বিভিন্ন সরকারী, বেসরকারী প্রতিষ্ঠান, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, সামাজিক সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানের নেতৃবৃন্দ।
বিজয় সরকার ৭ ফাল্গুন ১৩০৯ বঙ্গাব্দ বা ২০ ফেব্রুয়ারি ১৯০৩ সালে নড়াইল সদরের ডুমদি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার প্রকৃত নাম বিজয় অধিকারী হলেও সুর, সংগীতের জন্য ‘সরকার’ উপাধি লাভ করেন। তার বাবার নাম নবকৃষ্ণ অধিকারী ও মা হিমালয়া দেবী। তিনি নবম শ্রেণি পর্যন্তু লেখাপড়া করেন। তার দুই স্ত্রী বীণাপানি ও প্রমোদা অধিকারীর কেউই বেঁচে নেই। সন্তানদের মধ্যে কাজল অধিকারী ও বাদল অধিকারী এবং মেয়ে বুলবুলি অধিকারী ভারতের পশ্চিমবঙ্গে বসবাস করছেন।
কবি গানের উৎকর্ষ সাধনে তার অবদান অসামান্য। প্রচারবিমুখ ও নিভৃতচারী এই সংগীত সাধক মানুষের হৃদয়ের আকুতিকে চমৎকার সুর ব্যঞ্জনায় ফুটিয়ে সকলের অন্তরে ঠাঁই নিয়েছিলেন। কিশোর বয়স থেকেই গান রচনা করে বিজয় সরকার নিজেই তা পরিবেশন করতেন। তার গান শুনে তাকে আর্শীবাদ করেছেন বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম, পল্লীকবি জসিম উদদীন, কবি গোলাম মোস্তফা, শিল্পী আব্বাস উদ্দিন আহমদের মত বিখ্যাত ব্যক্তিরা। বিশ্ববরেণ্য চিত্রশিল্পী এসএম সুলতানের সঙ্গে তার ছিল গভীর সম্পর্ক।
জাতি-ধর্ম-বর্ণের উর্ধে থেকে চারণ কবি বিজয় সরকার প্রায় ২ হাজার বিজয়গীতি রচনা করেন। যার মধ্যে রয়েছে বিচ্ছেদি গান, শোকগীতি, ইসলামী গান, আধ্যাত্মিক গান, দেশের গান, কীর্তণ, ধর্মভক্তি ও মরমী গান। ভারতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৯৮৫ সালের ৪ ডিসেম্বর তিনি মৃত্যুবরণ করেন।
বাংলাদেশ শিল্পকলায় বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ চারণ কবি বিজয় সরকারকে (মরণোত্তর) ২০১৩ সালে একুশে পদক প্রদান করা হয়।
বিজয় সরকার গেয়েছেন- ‘যেমন আছে এই পৃথিবী/ তেমনিই ঠিক রবে/ সুন্দর এ পৃথিবী ছেড়ে একদিন চলে যেতে হবে।’ আবার ‘নবী নামের নৌকা গড়/ আল্লাহ নামের পাল খাটাও/ বিসমিল্লাহ বলিয়া মোমিন/ কূলের তরী খুলে দাও।’ কিংবা ‘আল্লাহ রসূল বল মোমিন/ আল্লাহ রসূল বল/ এবার দূরে ফেলে মায়ার বোঝা/ সোজা পথে চল।’ গেয়েছেন- ‘পোষা পাখি উড়ে যাবে সজনী/ ওরে একদিন ভাবি নাই মনে/ সে আমারে ভুলবে কেমনে।’
এছাড়াও গেয়েছেন-‘নক্সী কাঁথার মাঠেরে/ সাজুর ব্যথায় আজোরে বাজে রূপাই মিয়ার বাঁশের বাঁশি।’ ও ‘কী সাপে কামড়াইলো আমারে/ ওরে ও সাপুড়িয়ারে/ আ…জ্বলিয়া পুড়িয়া মলেম বিষে।’ আর ‘তুমি জানো নারে প্রিয়/ তুমি
মোর জীবনের সাধনা’সহ অসংখ্য গান।