হোমিও চিকিৎসকের কারণে মিনার পা কেটে ফেলা হলো

112

আব্দুল্লাহ আল মামুন, পার্বতীপুর (দিনাজপুর) ॥ দিনাজপুরের পার্বতীপুরে হোমিও ডাক্তারের ভূল চিকিৎসার কারনে ক্যান্সারে আক্রান্ত মৃত্যু পথযাত্রী মাদ্রাসা ছাত্রী মিনা’র পা কেটে ফেলা হয়েছে।
১৬ নভেম্বর বুধবার দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ (দিমেক) হাসপাতালে তার অপারেশন করা হয়। মিনার শারিরীক অবস্থার কথা জানতে চাইলে বড় বোন আক্তারিনা জানান, তার অবস্থা আশংকাজনক। পরে মিনার কেটে ফেলা পা টি বাড়ীতে এনে বিকেলে দাফন কার্য সম্পাদন করা হয়। এ ঘটনার জন্য দায়ী হাতুড়ে ডাক্তারের বিরুদ্ধে আজও কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি।
উল্লেখ্য যে, উপজেলার মোমিনপুর ইউনিয়নের হয়বতপুর দালালিপাড়া গ্রামের মোঃ রাজুর মেয়ে মিনা বেগম (১৪) এর ডান পায়ের গোড়ালীতে ছোট একটি টিউমার হয় প্রায় দেড় বছর আগে। মিনা স্থানীয় নীলকুঠির ডাঙ্গা দাখিল মাদ্রাসার ৮ম শ্রেণীতে পড়ে। ঐ মাদ্রাসার সুপার হোমিও ডাক্তার আনিসুল হক মিনার টিউমারটি দেখে নিজে অপারেশন করতে চায়। মিনার পরিবারের কেউ রাজী না থাকা সত্ত্বেও শিক্ষকের দাবী নিয়ে আনিসুল হক জোরপূর্বক ব্লেড দিয়ে দোকানে অপারেশন করে ৭টি সেলাই দেয়। তারপরও রক্ত বন্ধ হয়নি। নিরুপায় হয়ে অসুস্থ্য মিনাকে দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। অনেক চরাই উতরাই পেরিয়ে অর্থাভাবের কারনে দীর্ঘদিন পর তার অপারেশন হলো।