কালিয়ায় এক হিন্দু পরিবারের নির্মিত ওয়াল ভেঙ্গে দেয়ার অভিযোগ

87
All-focus

নড়াইলকণ্ঠ ॥ নড়াইলের কালিয়া উপজেলার চাচুড়ী ইউনিয়নের আরাজি বাঁশগ্রামের কৃষ্ণপদ দে’র নির্মিত ঘরের ওয়াল ভেঙ্গে দিয়েছে সন্ত্রাসী বাহিনী।

আজ শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) সকাল সাড়ে নয়টায় চেয়ারম্যান এর পোষা গুন্ডা বাহিনী এ কাজটি করেছে বলে অভিযোগ জানান স্থানীয়রা।

মৃত জ্যোতিন্দ্র নাথ দের পুত্র কৃষ্ণপদ দে এবং মৃত দ্বীনবন্ধু দের পুত্রগণ মৃনাল কান্তি দে ও তপন কান্তি দে এদের মধ্যে দীর্ঘ দিন ধরে জমি জমা সংক্রান্ত বিরোধ চলছিল। এ ব্যাপারে চেয়ারম্যান শালিস করেছেন এবং তাদের ঘর করার অনুমতি দিয়েছেন। সে মোতাবেক কৃষ্ণপদ ঘর করতে গেলে বাধা আসে এবং চেয়াম্যান ফোনে বলেন তোমার ঘর ভেঙ্গে দেওয়া হবে তুই কাজ বন্ধ রাখ। তখন কৃষ্ণ পদ কাজ বন্ধ করে দেন বলে জানান। কেন নির্মিত ঘরের ওয়াল ভেঙ্গে দেওয়া হবে, কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন আগে ঘর ভাঙ্গবো তার পরে কারণ বলবো। এ অবস্থায় কৃষ্ণ পদ দে ২৫/৩০ জন গ্রামবাসীদের নিয়ে চেয়ারম্যান হীরকের বাড়ীতে যান। তখনও তিনি বলেন আগে বাড়ী যাও ঘর ভেঙ্গে বলবো কারণ কি ?

শুক্রবার সকালে চেয়ারম্যান হীরকের কতিপয় পোষা গুন্ডা, তুহিন (৩০) পিং-অহিদ, ইনছান (৪০)পিং মোকছেদ,উভয় সাং-বিষ্ণুপুর, শওকত(৩০)পিতা মুস্তাইন, মোল্যাডাঙ্গা, কালিয়া,নড়াইল ও অজ্ঞাত আল হক আমাদের বাড়িতে আসে এবং আমাকে ও আমার ছেলেকে ডাকাডাকি করতে থাকে। এ অবস্থা দেখে আমার স্ত্রী শিফালী দে ও ছেলে বউ ভয়ে ঘরের দরজা আটকায়ে চিৎকার চেচামেচি করে সকলকে ডাকাডাকি করতে থাকে।

এ সময় স্থানীয় বাবলু বিশ্বাস এ পথ দিয়ে যাচ্ছিলেন চিৎকার শুনে তিনি এগিয়ে আসেন এবং শওকত নামে একজনকে বলে কি হইছে এখানে। তোমরা এখানে কেন। উত্তরে শওকত ও তার সঙ্গীরা বলে চেয়ারম্যান আমাদের পাঠিয়েছে তাদের সাথে দেখা করে কিছু কথা বলে আমরা চলে যাবো। আমি যেতে না যেতেই আমার সামনেই ওরা ওয়াল ভেঙ্গে ফেলল। ওয়াল ভাঙ্গতে বাঁশ, শাবল দিয়ে সহায়তা করে মৃনাল কান্তি দের স্ত্রী ক্ষমা দে। প্রকাশ মন্ডল ও লতা দাস বলেন ওয়াল ভাঙ্গার পরে সন্ত্রাসীরা তপনের সাথে দেখা করে টাকা নিতে আমরা দেখেছি বলে সাংবাদিকদের জানান তারা।

এসময় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন চাচুড়ি ইউনিয়নের বিট পুলিশিং এর এ এস আই শরীফ আহমেদ।

এ ঘটনা সম্পর্কে চেয়ারম্যান হীরকের কাছে জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের জানান কৃষ্ণপদ দে ও তপন দে আর মৃণাল দে এদের মধ্যে জমিজমা নিয়ে সমস্যা আছে। আমি ওদের চলাচলের রাস্তা রেখে ঘর নির্মান করতে বলেছি। ঘর ভাঙ্গতে পোষা লোক পাঠানোর কথা বললে তিনি বলেন ওদের আমি চলে যেতে বলেছি। ওরা কারা এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন তুহিন নামে একজনকে আমি চিনি আর কাউকে চিনিনা। আরাজি বাঁশগ্রামের কৃষ্ণ পদ দের ওয়াল ভাঙ্গা সম্পর্কে জানতে চাইলে কালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেন অফিসার পাঠিয়েছি ওরা অভিযোগ করলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।