ইউক্রেনে উত্তর-পূর্বাঞ্চলে সামরিক বাহিনীর বিমান বিধ্বস্ত, নিহত ২২

26

ইউক্রেনের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে সামরিক বাহিনীর একটি বিমান বিধ্বস্ত হয়ে কমপক্ষে ২২ জন মারা গেছেন। আরও দু’জনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। ২৮ জন যাত্রী বহনকারী বিমানের বাকি যাত্রীদের উদ্ধার করতে দুর্ঘটনাস্থলে উদ্ধারকর্মীরা কাজ করছেন।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে বলা হয়, শুক্রবার (২৫ সেপ্টেম্বর) স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় ওই বিমানটি বিধ্বস্ত হয়ে ভূপাতিত হয়। পরে সেটিতে আগুন ধরে যায়। প্রশিক্ষণের কাজে ব্যবহৃত বিমানটির দুর্ঘটনার কারণ সম্পর্কে কোনো ধারণা পাওয়া যায়নি এখনো।

ইউক্রেনের রাষ্ট্রীয় জরুরি সেবা কেন্দ্র থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়, দেশটির একটি সামরিক বিমানবন্দরের দুই কিলোমিটার দূরে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে। ‍দুর্ঘটনাস্থল থেকে ২২ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। দু’জনকে উদ্ধার করা হয়েছে আহত অবস্থায়। বাকিদের সন্ধান পেতে কাজ করে যাচ্ছেন উদ্ধারকর্মীরা।

দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী অ্যান্টন জেরাশেংকো বলেন, ২২ জনের মরদেহ উদ্ধারের পাশাপাশি দু’জনকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তাদের শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক। বাকিদের সন্ধান চলছে।

জানা গেছে, রাজধানী কিয়েভের আড়াইশ মাইল পূর্বে অবস্থিত ‍চুহুইভ বিমানবন্দরে অবতরণের কথা ছিল বিমানটির। তবে অবতরণের আগেই সেটি বিধ্বস্ত হয়ে যায়। এর যাত্রীদের সবাই ছিলেন ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় পরিচালিত একটি এভিয়েশন ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী। দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও জানিয়েছে, সামরিক বাহিনীর ওই বিমানে বিমান বাহিনীর পাইলট ও শিক্ষানবিশ ক্যাডেটরা ছিলেন।

বিভিন্ন সূত্র থেকে প্রাপ্ত প্রাথমিক তথ্যের বরাত দিয়ে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভোলোদিমির জেলেনস্কি-ও জানিয়েছেন, বিমানটি প্রশিক্ষণের কাজে ব্যবহৃত হচ্ছিল।

এখন পর্যন্ত এ দুর্ঘটনার কোনো কারণ জানাতে পারেনি কর্তৃপক্ষ।