রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীর মুক্তিযোদ্ধা সিদ্দিক আহম্মেদের দাফন সম্পন্ন

137

সাবেক নড়াইল জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট সিদ্দিক আহম্মেদকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হয়েছে। নড়াইল পৌর কবরস্থানে তাঁকে দাফন করা হয়।

সোমবার (১৭ আগস্ট) বাদ যোহর বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট সিদ্দিক আহম্মেদের মরদেহ নড়াইল পৌর কবরস্থান প্রাঙ্গনে নিয়ে আসা হলে পুলিশের একটি চৌকস দল বীর এই মুক্তিযোদ্ধাকে গার্ড অব অনার প্রদান করে। এরপর এই মাঠে নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। হাজার হাজার মানুষ জানাজায় অংশ নেন।

এ সময় জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন(পিপিএম) উপজেলা ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা, নড়াইল পৌর ও জেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা, মুক্তিযোদ্ধাসহ সর্বস্তরের মানুষ ছিলেন জানাজায়।

উল্লেখ্য, নড়াইল শহরের আলাদাতপুর (চরেরঘাট) এলাকার বাসিন্দা অ্যাডভোকেট সিদ্দিক আহম্মেদ কিছুদিন আগে জ্বর, সর্দিসহ করোনা উপসর্গ দেখা দেয়। পরে নমূনা পরীক্ষায় দেওয়ার পর গত ৭ আগষ্ট করোনা পজেটিভ আসে। তাঁকে উন্নত চিকিৎসার জন্য গত ৮ আগষ্ট রাজধানী ঢাকায় নেয়া হয়। সেখানে একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে আইসিইউতে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল রোববার (১৬ আগস্ট) রাত ৯টা ২০ মিনিটে ঢাকার একটি হাসপাতালে মারা যান তিনি।

অ্যাডভোকেট সিদ্দিক আহম্মেদ এক স্ত্রী ও দুটি কন্যা সন্তানসহ অসংখ্য আত্মীয় স্জন ও শুভাকাঙ্খী রেখে গেছেন। তাঁর স্ত্রী আনজুমান আরা একজন অবসপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা। তিনি রাজনীতি ও সমাজ সেবামূলক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত। বড় মেয়ে সঞ্চিতা আহমেদ গৃহিনী এবং ছোট মেয়ে মার্শিয়া আহমেদ চিকিৎসক হিসেবে নড়াইলে কর্মরত আছেন।

অ্যাডভোকেট সিদ্দিক আহম্মেদ নড়াইল জেলা আওয়ামী লীগের দুইবার সাবেক সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। এ ছাড়াও তিনি নড়াইল জজকোর্টের সাবেক পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ছিলেন। সিদ্দিক আহম্মেদের স্ত্রী আঞ্জুমান আরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক এবং নড়াইল জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রী।

এ্যাডভোকেট সিদ্দিক আহম্মেদ ছাত্রজীবন থেকে সক্রিয়ভাবে রাজনীতির সাথে জড়িয়ে পড়েন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। তিনি রাজনৈতিক জীবনে অনেক নির্যাতন-মামলার শিকার হলেও আওয়ামলীগের রাজনৈতিক আদর্শ থেকে কখনও বিচ্যুত হননি। তিনি স্পষ্টবাদী ছিলেন। রাজনৈতিক অঙ্গন, আইন পেশাসহ সর্বমহলে তিনি একজন প্রিয় মানুষ ছিলেন।

এদিকে তার মৃত্যুতে শোক ও সমবেদনা জানিয়েছেন নড়াইল-১ আসনের সংসদ সদস্য কবিরুল হক মুক্তি, নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য ক্রিকেট তারকা মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা, নড়াইল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস, সাধারণ সম্পাদক, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন খান নিলুসহ দলীয় ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।