দেশে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩৭ , শনাক্ত ২৯১১, সুস্থ ১১১২০ জন

78

নড়াইল কণ্ঠ ডেস্ক : দেশে বৈশ্বিক মহামারি (কোভিড-১৯) ২৪ ঘণ্টায় আরো ৩৭ জনের মৃত্যু, সর্বোচ্চ শনাক্ত ২৯১১ জন, সুস্থ ১১১২০ জন।

মঙ্গলবার (২ জুন) দুপুর আড়াইটার দিকে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত নিয়মিত অনলাইন স্বাস্থ্য বুলেটিনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (মহাপরিচালকের দায়িত্বপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, কোভিড-১৯ এ মোট মারা গেছেন ৭০৪ জন। মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৫৩৫৪৫ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৫২৩ জন, মোট সুস্থ হয়েছেন ১১১২০ জন। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ২১ শতাংশ।

তিনি আরো জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ৫২টি ল্যাবে ১৪৯৫০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। সেখান থেকে ১২৭০৪ জনের পরীক্ষা করা হয়। শনাক্তের হার ২২ দশমিক ৯১ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৩৫ শতাংশ। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৩ লাখ ৩৩ হাজার ৭৩ জনের।

অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা জানান, ৩৭ জনের মধ্যে ৩৩ জন পুরুষ ও ৪ জন নারী। ঢাকা বিভাগে ১০ জন, চট্টগ্রামে ১৫, সিলেট ৪ জন এবং অন্যান্য জেলায় ৮ জন। এর মধ্যে হাসপাতালে মারা গেছেন ২৮ জন, বাড়িতে ৯ জন। বয়স ভিত্তিক বিশ্লেষণে ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে ২ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ১০ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ৯ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১০ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ১ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ৪ জন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে ১ জন।

তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনের নেওয়া হয়েছে ৩৮৮ জনকে। বর্তমানে আইসোলেশনের আছেন ৬ হাজার ২৪০ জন। এছাড়া আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ১৬৯ জন, এ পর্যন্ত মোট ছাড় পেয়েছেন ৩ হাজার ৪০৭ জন।

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রথম শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। আর গত ১৮ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। এরপর থেকে দিনে দিনে এর সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে।

তিনি জানান, কোভিড-১৯ এ মোট মারা গেছেন ৭০৪ জন। মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৫৩৫৪৫ জন। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ২১ শতাংশ।

তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ৫২টি ল্যাবে ১৪৯৫০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। সেখান থেকে ১২৭০৪ জনের পরীক্ষা করা হয়। শনাক্তের হার ২২ দশমিক ৯১ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৩৫ শতাংশ। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৩ লাখ ৩৩ হাজার ৭৩ জনের।

অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা জানান, ৩৭ জনের মধ্যে ৩৩ জন পুরুষ ও ৪ জন নারী। ঢাকা বিভাগে ১০ জন, চট্টগ্রামে ১৫, সিলেট ৪ জন এবং অন্যান্য জেলায় ৮ জন। এর মধ্যে হাসপাতালে মারা গেছেন ২৮ জন, বাড়িতে ৯ জন। বয়স ভিত্তিক বিশ্লেষণে ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে ২ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ১০ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ৯ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১০ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ১ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ৪ জন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে ১ জন।

তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনের নেওয়া হয়েছে ৩৮৮ জনকে। বর্তমানে আইসোলেশনের আছেন ৬ হাজার ২৪০ জন। এছাড়া আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ১৬৯ জন, এ পর্যন্ত মোট ছাড় পেয়েছেন ৩ হাজার ৪০৭ জন।

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রথম শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। আর গত ১৮ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। এরপর থেকে দিনে দিনে এর সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে।