নড়াইলে ৩০ অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে দুদক কমিশনারের আর্থিক সহায়তা

194

নড়াইল কণ্ঠ : বৈশ্বিক মহামারি (কোভিড-১৯) করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রাদুর্ভাবে আর্থিক সংকটে পড়া নড়াইলের ৩০ জন অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে আর্থিক সহায়তা প্রদান করেছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের কমিশনার (তদন্ত) এ এফ এম আমিনুল ইসলাম। কমিশনার তাঁর ব্যক্তিগত তহবিল থেকে এ সহায়তা প্রদান করেছেন।

আজ শনিবার (৩০ মে) সকাল সাড়ে ১০টায় নড়াইল শহরে বীরমুক্তিযোদ্ধা শরীফ হুমায়ূন কবীর এঁর অফিস হতে সামাজিক দুরত্ব ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের স্বাস্থ্যবিধি নিয়ম বজায় রেখে নড়াইল সদর, কালিয়া ও লোহাগড়ার ৩০ জন অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে দুদক কমিশনের নগদ উপহার একহাজার টাকা করে তুলেন দেন নড়াইল সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা শরীফ হুমায়ূন কবীর, নড়াইল জেলা পরিষদের নির্বাচিত সদস্য, জেলা আওয়ামী লীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা সাইফুর রহমান হিলু, বীরমুক্তিযোদ্ধা বকতিয়ার হোসেন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এম এ ওয়াব ও তপন কুমার।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নড়াইল জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার অ্যাডভোকেট এস এ মতিন, জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও নড়াইল কণ্ঠের সম্পাদক কাজী হাফিজুর রহমান, মো: ফারুক হোসেনসহ প্রমুখ।

আর্থিক সংকটে পড়া অস্বচ্ছল বীরমুক্তিযোদ্ধা সিদ্দিক কাজী উপহার পেয়ে বলেন, আমার সহযোদ্ধা দুদকের কমিশনার আমিনুল ইসলাম হিরু ভাইকে আল্লাহ যেন সুস্থ্য রাখেন। আমাদের বিপাদে আপাদে যেন তিনি এভাবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়াতে পারেন।

এ সময় বীরমুক্তিযোদ্ধা শরীফ হুমায়ূন কবীর সাংবাদিকদের জানান, দুর্নীতি দমন কমিশনের কমিশনার (তদন্ত) এ এফ এম আমিনুল ইসলাম হিরু একজন প্রকৃত বীরমুক্তিযোদ্ধা। তিনি কয়েকদিন আগে আমাকে ফোন করে জানান যে, আমি (কমিশনার) নড়াইলে বৈশ্বিক মহামারি করোনায় আর্থিক সংকটে রয়েছেন এমন দুস্থ মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে আমার ব্যক্তিগত তহবিল থেকে ঈদ উপহার হিসেবে কিছু আর্থিক সহায়তা দিতে চাই। আপনি এমন ৩০ জন অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা করে তাদের মাঝে আমার পক্ষ থেকে এ সামন্য উপহার তুলেন দিবেন। তারঁ অনুরোধে আমি, হিলু, মতিন, বকতিয়ার, ওহাব মিলে হিরুর (কমিশনার) পক্ষ থেকে এ আয়োজন করেছি এবং ৩০ জন দু:স্থ অসহায় মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে এ আর্থিক সহায়তা প্রদান করলাম।

বীরমুক্তিযোদ্ধা শরীফ হুমায়ূন কবীর আরো জানান, দুদক কমিশনার (তদন্ত) এ এফ এম আমিনুল ইসলাম নড়াইলে প্রায় ১০০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভবন অনুমোদন করিয়ে দিয়েছেন। যার মধ্যে বর্তমান অনেক ভবনের কাজ চলমান রয়েছে। এছাড়া তিনি নড়াইলের বিভিন্ন উন্নয়নের জন্য সবার্ত্বক সহয়োগিত করে যাচ্ছেন।