বিএনপি নেতারা নজরদারিতে

115

নির্বাচন এলেই প্রার্থী নেই। একেকটি আসনে ১০ থেকে ২০জন পর্যন্ত মনোনয়ন চান বিএনপি। দলীয় মনোনয়ন পেতে ঝাঁপিয়ে পড়েন অসংখ্য নেতা। হোক সেটি জাতীয় কিংবা স্থানীয় সরকার নির্বাচন। দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় কাজ করেও অনেকেই মনোনয়ন বঞ্চিত হন, আবার এলাকায় যাতায়াত না করে, স্থানীয় জনগণের সাথে যোগাযোগ না রেখে অনেকেই বাগিয়ে নেন দলীয় প্রতীক। সর্বশেষ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও ৩০০ আসনের বিপরীতে সাড়ে ৪ হাজারের বেশি প্রার্থী ধানের শীষের প্রার্থী হওয়ার জন্য মনোনয়ন ফরম কিনেছিলেন। উপ-নির্বাচন ও স্থানীয় সরকার নির্বাচনেও থাকে প্রার্থীর ছড়াছড়ি। যাদের বেশিরভাগই নির্বাচনের পর অদৃশ্য হয়ে গেছেন। যেই এলাকার জনপ্রতিনিধি হতে চেয়েছিলেন সেই এলাকার মানুষও তাদের খুঁজে পাচ্ছে না। এমন পরিস্থিতিতে দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হয়েছে। দেশ ও মানুষের এই দুর্যোগময় মুহূর্তে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য নির্দেশ দিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। বিগত দিনে যারা নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছিলেন, প্রার্থী হওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন এবং আগামীতে যারা প্রার্থী হতে চান তাদের প্রত্যেককেই নিজ নিজ এলাকার মানুষকে সহযোগিতা করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে দলটির ভারপ্রাপ্ত প্রধানের পক্ষ থেকে।

বিএনপি সূত্রে জানা যায়, করোনা সঙ্কট শুরু হওয়ার পর থেকেই ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান নির্দেশ দিয়েছেন যার যার এলাকার মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য। বিশেষ করে যারা বিগত দিনে প্রার্থী হয়েছিলেন এবং আগামী দিনে প্রার্থী হতে চান। নির্দেশনা মেনে অনেক নেতাই যার যার সামর্থ্য অনুযায়ি খাদ্যসমাগ্রী, সুরক্ষা সমগ্রী, উপহার সামগ্রী, নগদ অর্থসহ নানাভাবে স্থানীয় দরিদ্র, অসহায়, দিনমজুর, খেটে খাওয়া, দুঃস্থ মানুষের হাতে তুলে দিয়েছেন। তৃণমূল নেতাকর্মীরা মোটারসাইকেল বিক্রি করে, বউয়ের গহনা, জমি বন্ধন রেখেও ত্রাণ তৎপরতা চালিয়েছেন। তবে অনেক নেতা সামর্থ্য থাকার পরও এই নির্দেশনা মানেননি বলেও অভিযোগ রয়েছে। এজন্য দলের যেসব নেতা এই সঙ্কটকালীন সময়ে মানুষের পাশে ছিলেন এবং যারা ছিলেন না তাদের প্রত্যেকের তথ্যই সংগ্রহ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দলটির অন্যতম একজন শীর্ষ নেতা। এমনকি অনেকেই ছবি তোলার জন্য নাম মাত্র কিছু সহযোগিতা করে দায় সেরেছেন তাদের বিষয়েও স্থানীয় নেতাদের মাধ্যমে তারেক রহমান তথ্য নিয়েছেন বলে একাধিক নেতা জানিয়েছেন।