যশোর ২৫০ বেড হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবার মানোন্নয়নে টিআইবি’র মতবিনিময়

105

নড়াইল কণ্ঠ : ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)’র পৃষ্ঠপোষকতায় পরিচালিত সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক), যশোরের আয়োজনে ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৬, বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট যশোর জেনারেল হাসপাতালের সেবার মানোন্নয়ন শীর্ষক এক মতবিনিময় সভা হাসপাতালের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে সভাপতিত্ব করেন হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. শ্যামল কৃষ্ণ সাহা। সভা সঞ্চালনা করেন সনাক যশোরের সভাপতি এম. আর. খায়রুল উমাম। বক্তব্য দেন সনাক’র সাবেক সভাপতি প্রফেসর ড. মো: মুস্তাফিজুর রহমান, হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. এ. কে. এম. কামরুল ইসলাম, ডা. এ. এইচ. এম. আব্দুর রউফ, আরএমও ডা. সামসুল হাসান, ওয়ার্ড মাস্টার মুস্তাফিজুর রহমান, টিআইবি’র ইয়েস সদস্য স্বপ্না দেবনাথ, আমিনুর রহমান প্রমুখ। অনুষ্ঠান পরিচালনায় সার্বিক সহযোগিতা করেন টিআইবি’র এরিয়া ম্যানেজার এ. এইচ. এম. আনিসুজ্জামান। সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সনাক সদস্য এ্যাড. প্রশান্ত দেবনাথ, আফসানা জামান ইভা, হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. মোসলেম উদ্দিন, ডা. এ. কে. এম. জাহাঙ্গীর আলম, ডা. হিমাদ্রি শেখর সরকার, ডা. মাহবুবুর রহমান, ডা. আলমগীর কবীর, ডা. রীনা ঘোষ, ডা. নিলুফার ইয়াসমিন প্রমুখ।

সভায় হাসপাতালে সনাক যশোর কর্তৃক পরিচালিত বিভিন্ন কার্যক্রম ও হাসপাতারের বর্তমান অবস্থা তুলে ধরেন সনাক’র স্বাস্থ্য বিষয়ক উপ-কমিটির আহবায়ক মো: সাইফুজ্জামান মজু। এতে যে সকল বিষয় উঠে আসে তা হলো- পূর্বের তুলনায় হাসপাতালের সেবার মান এবং চারপাশের পরিবেশ অনেক ভাল। আউটডোরের বেশির ভাগ রোগীর মতামত, ‘ডাক্তার ও নার্সরা সেবা প্রদানে বেশ আন্তরিক’। কিছু রোগীর অভিযোগ, কিছু কিছু ডাক্তার হাসপাতালে আগত রোগীদের তাদের নিজস্ব চেম্বারে যাওয়ার পরামর্শ দেন। হাসপাতালে দালালদের দৌরাত্ম্য রয়েছে। হাসপাতাল চত্ত্বরে সব সময় বহিরাগত এ্যাম্বুলেন্স থাকে। হাসপাতালের কোন ওয়েবসাইট নেই। হাসপাতালে মশা, কুকুর, বিড়াল ও গরুর উপদ্রব বেড়েছে।

সমস্যা সমাধানে যে সকল সুপারিশ করা হয় তা হলো- হাসপাতালে আগত রোগীদের যাতে বাইরে চিকিৎসার জন্য পাঠানো না হয় সেদিকে কর্তৃপক্ষের বিশেষ নজর দেওয়া প্রয়োজন। কর্তৃপক্ষের হাসপাতালে দালালদের দৌরাত্ম্য বন্ধের ব্যবস্থা করা দরকার। হাসপাতালের একটি ওয়েবসাইট থাকা জরুরি। হাসপাতালে মশা, কুকুর, বিড়াল ও গরুর উপদ্রব বন্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ দরকার। হাসপাতাল চত্ত্বরে বহিরাগত এ্যাম্বুলেন্স বন্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ আবশ্যক।

বিষয়গুলি নিয়ে কর্তৃপক্ষের সাথে সনাক’র অত্যন্ত খোলামেলা আলোচনা হয়। সমস্যা সমাধানে একে অপরের সহযোগী হিসেবে কাজ করার প্রত্যাশা করা হয়। সভায় উত্থাপিত সমস্যা সমাধানে যথাসাধ্য উদ্যোগ নেবেন বলে আশ্বাস দেন কর্তৃপক্ষ।