সাতক্ষীরায় পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে সাদ্দাম গুলিবিদ্ধ

147

নড়াইল কণ্ঠ : সাতক্ষীরা জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) সদস্যদের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে সাদ্দাম হেসেন (২৫) নামে অপহরণকারী চক্রের এক সদস্য গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) ভোরে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার গাঙনি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এসময় ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শ্যুটার গান ও দু’টি রাম দা উদ্ধার করা হয়।

গুলিবিদ্ধ সাদ্দাম হোসেন পাশের জেলা যশোরের শার্শা উপজেলার কাজিরবেড় গ্রামের রবিউল ইসলামের ছেলে।

সাতক্ষীরা ডিবি পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনামুল হক জানান, সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সকালে ভোমরা স্থলবন্দর এলাকা থেকে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট আব্দুস সেলিম অপহৃত হন। এ ঘটনায় শার্শার কাজিরবেড় এলাকা থেকে মঙ্গলবার গভীররাতে ওই ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করার পাশাপাশি চার অপহরণকারীকে আটক করা হয়। আটক চারজনের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বুধবার রাতে ওই এলাকা থেকে সাদ্দাম হেসেনকে আটক করে সাতক্ষীরা আনা হচ্ছিল। পথে গাঙনি এলাকায় আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা সাদ্দামের সহযোগীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এসময় আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। উভয়পক্ষের মধ্যে গুলি বিনিময়ের একপর্যায়ে সাদ্দাম গুলিবিদ্ধ হন। এসময় তার সহযোগীরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

তিনি আরো জানান, পরে গুলিবিদ্ধ সাদ্দামকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এছাড়া এসময় ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শ্যুটার গান ও দু’টি রাম দা উদ্ধার করে পুলিশ।

প্রসঙ্গত, ভোমরা বন্দর থেকে ব্যবসায়ী আব্দুস সেলিমকে অপহরণের ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে আটক ব্যক্তিরা হলেন-জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার বাথুয়াডাঙ্গা গ্রামের আব্দুল কাদের গাজীর ছেলে পুলিশ কনস্টেবল বেলাল হোসেন (৪১), যশোরের শার্শা উপজেলার কাজিরবিল গ্রামের আকরাম হোসেনের ছেলে রবিউল ইসরাম (২২), সাতক্ষীরা শহরের পলাশপোল গ্রামের মনসুর আলীর ছেলে তুহিন হোসেন (৩৫) ও একই উপজেলার যাদবপুর গ্রামের মৃত আমিন উদ্দিনের ছেলে হাফিজুর রহমান (৩২) ।