মাশরাফী’র নানা খুলনা মেডিকেলের চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত

95

নড়াইল কণ্ঠ : খুলনা মেডিকেল কলেজের (খুমেক) ইউরোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মাসুদ হাসানের শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। এ নিয়ে খুলনায় ২ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে। আজ শনিবার সন্ধ্যায় ওই তথ্য নিশ্চিত করেছেন খুলনা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. আবদুল আহাদ।

খুমেকের ল্যাব সূত্রে জানা গেছে, আজ শনিবার (১৮ এপ্রিল) ল্যাবে মোট ৫০টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ডা. মাসুদের করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়, বাকিগুলোর ফলাফল নেগেটিভ।

খুমেকের অধ্যক্ষ ডা. আবদুল আহাদ জানান, ডা. মাসুদ হাসানের জ্বর, গলাব্যাথা ও গায়ে ব্যথা থাকায় শনিবার ল্যাবে করোনা ভাইরাসের পরীক্ষা করা হয়। তিনি করোনা পজেটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। ডা. মাসুদ কলেজের রেস্ট হাউজে থাকেন। তাকে সেখানে রেখেই চিকিৎসা দেয়া হবে। করোনা হাসপাতালে ভর্তি করা হবে কিনা সে ব্যাপারে পরে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

এছাড়া ওই রেস্ট হাউজে থাকা আরও ৫/৬ জন চিকিৎসককে আপাতত সেখানেই অবস্থানের জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এর আগে গত ১৪ এপ্রিল নগরীর করিমনগর এলাকার আজিজুর রহমানের করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছিল। তিনি বর্তমানে বাড়িতেই চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

উল্লেখ্য, খুলনা মেডিকেল কলেজের (খুমেক) ইউরোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মাসুদ হাসান নড়াইলের সন্তান। পৈত্রিক বাড়ি নড়াইলের কালিয়া উপজেলার কলাবাড়িয়া। তবে তিনি নড়াইল শহরেই বড় হয়েছেন। তিনি কিংবদন্তি অধিনায়ক ও নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার নানা হন। অর্থাৎ ডা. মাসুদ হাসান মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার নানীর আপন ফুফাতো ভাই।