মাশরাফীর উদ্যোগে নড়াইলে জীবাণুনাশক কক্ষ স্থাপন

112

নড়াইল কণ্ঠ : করোনাভাইরাসের সংকটময় মুহূর্তে প্রথম থেকেই এগিয়ে এসেছেন কিংবদন্তি অধিনায়ক, নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা। করোনার কারণে কর্মহীন হয়ে পড়া অসহায়দের মাঝে নিজ উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ, নড়াইল এক্রপ্রেস ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে গৃহবন্দী মানুষের চিকিৎসার কথা ভেবে ‘ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল টিম’ গঠনের পর এবার নড়াইলে বসিয়েছেন জীবাণুনাশক কক্ষ।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের প্রভাব পড়ার শুরুতেই মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা সচেতনতামূলক বার্তা দিয়ে আসছেন। এরপর সারা দেশের ন্যায় নিজ জেলা নড়াইলে সবকিছু বন্ধ হওয়া শুরু করলে সাধারণ খেটে-খাওয়া মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়ে। এ সময় তিনি প্রায় ২ হাজর পরিবারের মধ্যে তুলে দেন খাদ্য সহায়তা। নিজ জেলার সকল চিকিৎসকদের জন্য ২’শ পিপিই দেন।

এদিকে করোনাভাইরাসের কারনে সব শ্রেণিপেশার মানুষের চিকিৎসা সেবা পেতে প্রায় অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। করোনা আতঙ্কে হাসপাতাল লোকশুন্য হয়ে পড়ে। এ সময় সাধারণ রোগের চিকিৎসা করতেও আপত্তি ছিল ডাক্তারদের। একই সাথে বন্ধ পড়ে অনেক প্রাইভেট ক্লিনিকগুলো।

এ পরিস্থিতিতে নড়াইল-২ আসনের এমপি মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা ‘ডাক্তারের কাছে রোগী নয়, এবার রোগীর কাছে ছুটে যাবেন ডাক্তার” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে নড়াইলের মানুষের জন্য নিজের প্রতিষ্ঠিত নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে গঠন করে একটি ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল টিম।

এরপর নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে নড়াইল সদর হাসপাতাল গেটে বসানো হয় জীবাণুনাশক কক্ষ। হাসপাতালে ঢোকার সময় চেম্বারের মধ্য দিয়ে কেউ গেলে তার শরীরে ছিটানো হবে জীবাণুনাশক স্প্রে। স্টিম দিয়ে ছিটানো এই জীবাণুনাশক স্প্রেতে শরীর ভিজবেনা বরং জীবাণু ধ্বংসে কার্যকর পদ্ধতিগুলোর একটি।

এদিকে জানাগেছে , দ্রুতই জীবাণুনাশক কক্ষ বসানো হবে লোহাগড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। এমনকি জনগণের সুরক্ষা নিশ্চিতে দিন রাত পরিশ্রম করে যাওয়া পুলিশের সুরক্ষার্থেও এই জীবাণুনাশক কক্ষ বসানোর পরিকল্পনা রয়েছে মাশরাফীর।