নড়াইলে করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে পুলিশের ‘কুইক রিসপন্স টিম’ মাঠে

405

নড়াইল কণ্ঠ : অপ্রয়োজনে যত্রতত্র চলাফেরা নিয়ন্ত্রণ, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা এবং করোনাভাইরাস সচেতনতার লক্ষ্যে নড়াইল জেলা পুলিশ একটি ‘কুইক রিসপন্স টিম (কিউআরটি) মাঠে নামিয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) সকাল থেকে পুলিশের এই টিম রীতিমতো ডান্ডা মেরে ঘরে ডুকাতে শুরু করেছে। যত্রতত্র রাস্তায়, পাড়ায়, মহল্লায় জড়ো হয়ে আড্ডা মারা, অহেতুক ঘোরাফেরা থেকে বিরত থাকার জন্যই মুলত: পুলিশ এ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার) জানান, ‘গতকাল ২৫ মার্চ সন্ধ্যায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে চলমান লড়াইকে ‘যুদ্ধ’ হিসেবে আখ্যায়িত করে জাতির উদ্দেশ্যে এক ভাষন দিয়েছেন। সেই সাথে তিনি এ সংকটময় সময়ে মানুষজনকে তাদের দায়িত্ব হিসেবে ঘরে থাকার আহ্বান জানিয়েছেন।’ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কথা, বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ না মেনে যারা অহেতুক ঘোরাফেরা করবে তাদের নিয়ন্ত্রণে আমরা ‘কুইক রিসপন্স টিম (কিউআরটি) মাঠে নামিয়েছি। সকলের সহযোগিতা পেলে আমরা এ যুদ্ধে জয়ী হবো ইনশাল্লাহ।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষনে আরো বলেছেন, যারা করোনাভাইরাস আক্রান্ত দেশ থেকে ফিরেছেন তাদের হোম কোয়ারেন্টাইনের নির্দেশনা অক্ষরে অক্ষরে মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘মাত্র ১৪ দিন আলাদা থাকুন। আপনার পরিবার, পাড়া-প্রতিবেশি, এলাকাবাসী এবং সর্বোপরি দেশের মানুষের জীবন বাঁচানোর জন্য এসব নির্দেশনা মেনে চলা প্রয়োজন।’

এ সম্পর্কে আমাদের একজন সমাজকর্মী জানান, নৈতিকতার কোন পরিবর্তন ঘটেনি আমাদের। নিজের ভালোটুকুও আমরা নিজেরা বুঝতে শিখিনি। বিনয়ের সাথে কোন একটি বিষয়কে গুরুত্ব দিয়ে অনুরোধ করলে আমরা মনে করি এটা কোন ব্যাপারই না। আমরা মুলত: প্যাদানীতে অভ্যস্ত, ডান্ডা না খেলে আমরা সহজে সোজা হই না। তবে পুলিশ যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে এতে আমি সমর্থন করি। আমরা যারা সমাজ সতেন মানুষ তাদের সমর্থন ও সহযোগিতা খুব জরুরি।

নড়াইল কণ্ঠ প্রতিনিধি জানান, আমি গতকাল সন্ধ্যায় জরুরি একটি কাজে ঘরের বাইরে বেরিয়ে দেখলাম নড়াইল জেলা শহরের অবস্থার তেমন কোন পরিবর্তন ঘটেনি। দেশের চলমান পরিস্থিতির জন্য যেসব পরামর্শ দেয়া হয়েছে তা উপেক্ষা করে আগের মতোই যত্রতত্র ঘুরাফেরা করছে মানুষ। পুলিশের এ উদ্যোগ প্রসংশনীয়, ‘কুইক রিসপন্স টিম (কিউআরটি) মাঠে অব্যহত থাকলে মানুষ ঘরেই থাকবে।