করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সর্বস্তর মানুষের সহযোগিতা প্রয়োজন -সিভিল সার্জন

82

নড়াইল কণ্ঠ : নড়াইল জেলার বিদেশ থেকে আগত ১১ জন ব্যক্তি স্বেচ্ছা/গৃহ কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে। সোমবার (১৬ মার্চ) সকালে নড়াইলের সিভিল সার্জন ডা: মো: আব্দুল মোমেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

স্বাস্থ্য বিভাগের তত্বাবধায়নে নোভেল করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে হোম কোয়ারেন্টাইনে নড়াইল সদরের ৮ জন, লোহাগড়ায় ২ জন এবং কালিয়ায় ১জন রয়েছে। এ সব ব্যক্তি সম্প্রতি মালেশিয়া, চীন, ওমান, ভারত, সৌদি আরব ও ইটালী থেকে দেশে ফিরে এসেছেন।

এ সময় সিভিল সার্জন নড়াইল কণ্ঠ প্রতিনিধিকে জানান, ‘আমাদের যে স্বাস্থ্য বিভাগের হেলথ এ্যাসিসট্যান্ট এবং ইন্সেপেক্টরা আছেন তাদের মাধ্যমে এই তথ্যটি সংগ্রহ করেছি, এবং তাদের হোম কোয়ারান্টাইনে থাকার ব্যবস্থা করেছি।’ ‘হোম কোয়ারান্টাইনে থাকার নিশ্চিত করতে হলে স্বাস্থ্য বিভাগের পাশাপাশি পুলিশ বিভাগ, প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতার প্রয়োজন।’

তিনি আরো জানান, ‘আমাদের যে সব প্রবাসী বিমান বন্দর কিংবা পোর্টল্যান্ড দিয়ে দেশে ঢুকে ওখান থেকে যদি আমাদের পুলিশ বিভাগ, স্বাস্থ্য বিভাগ এবং প্রশাসনিক ইমেইল ঠিকানায় এসব ব্যক্তিদের ঠিকানা দেয়া যায় তাহলে হোম কোয়ারান্টাইন আরো সুনিশ্চিত হয়।’ আমরা মনে করি এইটা ভাইরাল ডিজিস এটা অন্যান্য ভাইরাল ডিজিসের মতোই এটা ছাড়াবেই। এই জন্য হাঁচি-কাশি দেয়ার সময় এডিকুয়েটগুলি যেন আমারা মেনে চলি।’

সিভিল সার্জন জানান, নড়াইল সদর হাসপাতালে ১০ বেডের আইসোলেশন ইউনিট, টিটিসিতে ১৩টি এবং নাসিং ইউনিষ্টিশনে বেশ কয়েকটি রুমের কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এ বিষয়ে ইতিমধ্যে ১১ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি হয়েছে। কমিটি নিয়মিত সভা করা এবং হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা ব্যক্তিদের ওপর মনিটরিংও করা হচ্ছে।

এ সময় তিনি সর্বস্তরের মানুষের উদ্দেশ্যে বলেন, আইইডিসিআর -এর নির্দেশনা অনুযায়ি ‘কোভিড-১৯ আক্রান্ত ব্যক্তিদের সংস্পর্শে আসা সন্দেহে থাকা ব্যক্তিদের কোয়ারেন্টিন সম্পর্কে জ্ঞাতব্য তথ্য প্রচারের জন্য অনুরোধ করেন।

বিস্তারিত জানতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন :