করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় ওষুধ আবিষ্কারের দাবি করেছে থাইল্যান্ড

87

নড়াইল কণ্ঠ ডেস্ক : সম্প্রতি চীনসহ বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসে এরই মধ্যে ৩৬১ জনের মৃত্যু হয়েছে, সংক্রমিত হয়েছে ১৭ হাজার ২০৫ জন। চীন ছাড়া বিশ্বের প্রায় ২৪টি দেশে নতুন এ প্রাণঘাতি ভাইরাসে ১৭১ জন আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এমতাবস্থায় রহস্যময় এ নতুন ভাইরাসের চিকিৎসায় ওষুধ আবিষ্কারের দাবি করেছে থাইল্যান্ড।
থাই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, বেশ কয়েকটি ভাইরাসনিরোধী (অ্যান্টিভাইরাল) ওষুধের সংমিশ্রণ ঘটিয়ে করোনাভাইরাসের ওষুধ তৈরি করা সম্ভব হয়েছে। এ ওষুধের ব্যবহারে এরই মধ্যে আক্রান্ত এক রোগী সুস্থ হয়ে উঠছেন।
গতকাল রোববার (২ ফেব্রুয়ারি) দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, করোনাভাইরাস আক্রান্ত ৭১ বছর বয়সী এক চীনা নারীকে ইনফ্লুয়েঞ্জা ও এইচআইভির চিকিৎসায় ব্যবহৃত অ্যান্টিভাইরাল ওষুধের মিশ্রণে তেরি নতুন ধরনের এক ওষুধ দেয়া হয়। এতে মাত্র ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই চমকপ্রদ সাফল্য পাওয়া গেছে।
এ বিষয়ে নতুন এ ওষুধের উদ্ভাবক দলের নেতৃত্বদানকারী থাই চিকিৎসক ক্রিয়েংসাক আত্তিপর্নানিচ বলছেন, আমরা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত গুরুতর এক রোগীকে অ্যান্টিভাইরাল ওষুধ দিয়ে চিকিৎসা করেছি। এতে খুবই সন্তোষজনক ফলাফল পাওয়া গেছে।
ওষুধ প্রয়োগের মাত্র ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই ওই রোগীর শারীরিক অবস্থার বেশ উন্নতি হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, মানসিকভাবে পুরোপুরি বিধ্বস্ত রোগী মাত্র ১২ ঘণ্টা পরই উঠে বসেছে। ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ল্যাব রেজাল্টও ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পজিটিভ থেকে নেগেটিভে পরিণত হয়েছে।
চিকিৎসকের বরাত দিয়ে সিএনএন ও রয়টার্স জানায়, নতুন ধরনের এ ওষুধে অ্যান্টি-ফ্লু ওসেলটামিভির ও এইচআইভির চিকিৎসায় ব্যবহৃত লোপিনাভির এবং রিটোনাভিরের মিশ্রণ ব্যবহার করা হয়েছে। উদ্ভাবিত এ পদ্ধতি আরো ব্যবহার করা হবে কি না, তা জানতে থাই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের গবেষেণা প্রতিবেদনের জন্য অপেক্ষা করছেন তারা।
এর আগে গত সপ্তাহেই চীনের রাজধানী বেইজিংয়ের হাসপাতালগুলোতে করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসায় এইচআইভির ওষুধ ব্যবহারের কথা জানা যায়। তবে এতে তারা সফল হয়েছেন কি না তা এখনো নিশ্চিত নয়।