কালিয়ায় অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে ইউপি সচিব আটক

49

নড়াইল কণ্ঠ : সামাজিক নিরাপত্তা সহায়তার অর্থ স্ত্রীসহ পরিবারের সদস্যদের নামে আত্মসাতসহ ইউপি সদস্যদের স্বাক্ষর জ্বাল করার অভিযোগে নড়াইলের কালিয়া উপজেলার জয়নগর ইউপি সচিব মো. মহিদুল ইসলামকে আটক করেছেন কালিয়ার ইউএনও মো. নাজমুল হুদা। জয়নগর ইউপির একজন সদস্য মো. কামরুল ইসলম কতৃক স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ে দায়েরকৃত লিখিত অভিযোগের তদন্তকালে বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে আটক করা হয়। আটক ইউপি সচিবকে উপজেলার নড়গাতি থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।
অভিযোগের বিবরনে জানা যায়, জয়নগর ইউপি চেয়ারম্যান চৌধুরী আলাউদ্দিন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে ইউনিয়ন পরিষদ পরিচালনাসহ নানা ভাবে দূর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে অর্থ আত্মসাত করে আসছেন। ইউপি সদস্যদের না জানিয়ে একক ভাবে সিদ্ধান্ত গ্রহন করে ভুমি হস্তান্তর ফিসের টাকা, সরকারের নির্দ্ধারিত উন্নয়ন কর্মকান্ডের টিআর, কাবিখা, কাবিটা, কর্মসৃজন প্রকল্প ও এডিপির বরাদ্দকৃত অর্থ বিভিন্ন প্রকল্পের নামে বরাদ্দকৃত অর্থ, নিয়ম বর্হিভূতভাবে ইউনিয়নের গ্রাম গুলোতে ৬ হাজার পরিবারের কাছে বাড়ির হোল্ডিং নম্বর প্লেট বিক্রির ৬ লাখ টাকা, সরকারি করের টাকা, ২০১৯ সালের জানুয়ারী থেকে জুন পর্যন্ত ভিজিডির সুবিধা ভোগীদের জমাকৃত টাকাসহ সামাজিক নিরাপত্তা সহায়তার টাকা এবং এলজিএসপির বরাদ্দকৃত ৮ লাখ ৬৮ হাজার ৭৭৭ টাকা আত্মসাত করেছেন বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া ইউপি সদস্যদের সাথে অসদাচরনের অভিযোগ করেন কামরুল ইসলাম। স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় অভিযোগটির তদন্তভার কালিয়ার ইউএনওর উপর ন্যাস্ত করলে বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টার দিকে ঐ ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে গিয়ে তদন্ত শুরু করেন ইউএনও নাজমুল হুদা। তদন্তকালে জয়নগর ইউপি চেয়ারম্যানসহ ইউপি সচিব মো. মহিদুলের বিরুদ্ধে সামাজিক নিরাপত্তা সহায়তা, ভিজিডি, বিধাব ভাতা, বয়স্কভাতা ও মাতৃত্বকালিন ভাতার টাকা পরিবারের সদস্যসহ স্বজনদের নামে আত্মসাত ও সরকারি অর্থ আত্মসাতের প্রমান মিললে তদন্ত কর্মকর্তা তাৎক্ষনিক ভাবে সচিবকে আটক করে পুলিশে সপর্দ করেন। জয়নগর ইউপির চেয়ারম্যান এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, একটি কুচক্রী মহল তার রাজনৈতিক সুনাম নষ্টসহ হীন স্বার্থ আদায়ের জন্য এসকল মিথ্যা ও বানোয়াট অভিযোগ করে তাকে হেও প্রতিপন্ন করার অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।
কালিয়ার ইউএনও মো. নাজমুল হুদা বলেছেন, তদন্তকালে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় ঐ ইউপি সচিবকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে তিনি জানিয়েছেন।