নড়াইল জেলা আ’লীগের সম্মেলন ০৩ ডিসেম্বর: কে হচ্ছেন সভাপতি, সম্পাদক?

119

নড়াইল কণ্ঠ : নড়াইল জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন আগামী ৩ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। কে হচ্ছেন সভাপতি, সম্পাদক এনিয়ে জেলার সর্বত্র জল্পনা-কল্পনা চলছে। এসব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটানোর জন্য ইতিমধ্যে নড়েচড়ে বসছেন জেলার সম্ভাব্য সভাপতি-সম্পাদক প্রার্থীরা। ইতোমধ্যে সম্ভাব্য সভাপতি-সম্পাদক প্রার্থীরা দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। ধর্না দিচ্ছেন কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছেও। সম্মেলনের ফলে নেতা-কর্মীদের মধ্যে দেখা যাচ্ছে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা। নড়াইল শহরে তোরণ প্রদর্শনের প্রতিযোগিতায় কমতি নেই। নড়াইল জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ৩ ডিসেম্বরকে কেন্দ্র করে এসব উৎসবমূখর পরিবেশ তৈরী হয়েছে।

দলীয় সূত্রে জানাগেছে, নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের সুলতান মঞ্চে সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য পিযুষ কান্তি ভট্টাচার্য।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোসের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন খান নিলুর পরিচালনায় সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখবেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি।

উল্লেখ্য, এর আগে ২০১৫ সালের ১৫ই ফেব্রুয়ারি নড়াইল জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোসকে সভাপতি এবং নিজাম উদ্দিন খান নিলুকে সাধারণ সম্পাদক করে কমিটি ঘোষণা করা হয়।

আগামী মাসের ২০ ও ২১ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ হওয়ার আগেই জেলা সম্মেলন সম্পন্ন হচ্ছে। যার ফলে শেষ হচ্ছে জেলা সম্মেলনগুলো।

এদিকে নড়াইল জেলা সম্মেলনের আগে দলীয় নেতা-কর্মীদের মধ্যে গুনঞ্জন শোনা যাচ্ছে এবার কমিটিতে কোন দুর্নীতিবাজের স্থান হতে দেয়া হবে না। সম্ভাব্য সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তাদের অবস্থান সম্পর্কে নেতা কর্মীরা অবগত আছেন নিশ্চয়? কে হচ্ছেন দুর্নীতিমুক্ত জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি-সম্পাদক? জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস কি তৃতীয় বারের মত সভাপতি হিসেবে হ্যাট্রিক করছেন? নাকি সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন খান নিলুকে সভাপতি করে নতুন সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করা হবে? নাকি বর্তমান কমিটিই বহাল থাকছে? এ নিয়ে নেতা কর্মীদের মধ্যে চলছে জোর আলোচনা।

সম্মেলনকে সামনে রেখে সভাপতি-সম্পাদক প্রার্থীর সমর্থকরা চালিয়ে যাচ্ছেন প্রচারণা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রার্থীদের রাজনৈতিক জীবন বৃত্তান্ত তুলেও ধরছেন সমর্থকরা।

সভাপতি পদে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট গোলাম নবী, জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট ফজলুর রহমান জিন্নাহ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সিদ্দিক আহম্মেদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোহাম্মদ আলী, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সোহরাব হোসেন বিশ্বাস , সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট অচিন চক্রবর্তী।

অন্যদিকে সাধারণ সম্পাদক পদে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন খান নিলু, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক ও জেলা চেম্বর অব কমার্সের সভাপতি মো: হাসানুজ্জামান, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও নড়াইল পৌরসভার মেয়র জাহাঙ্গীর বিশ্বাস, সাবেক লক্ষ্মীপাশা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, সাবেক জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক, নড়াইল জেলা পাবলিক লাইব্রেয়ারীর নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক, আওয়ামী লীগ সদস্য কাজী বসিরুল হক ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ উপ-কমিটি ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য রাশেদুল বাসার ডলার নাম শোনা যাচ্ছে।

সম্মেলন সম্পর্কে জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক দেবাশিষ কুন্ডু মিটুল জানান, আগামী ৩ ডিসেম্বর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে নেতা-কর্মীদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা লক্ষ্য করা গেছে।

জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও প্রযুক্তি সেলের পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার খশরুল আলম পলাশ স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, সম্মেলনে সভাপতি-সম্পাদক প্রর্থীদের ২৫ হাজার টাকা দিয়ে আবেদন ফরম ক্রয় করতে হবে। ২৬ থেকে ৩০ নভেম্বর পর্যন্তু আবেদন ফরম কেনা যাবে এবং ১ ডিসেম্বর বিকাল ৫টার মধ্যে পূরণকৃত ফরম জমা দিতে হবে বলেও প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ্য করা হয়েছে।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস এবং জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন খান নিলু বলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের প্রস্তুতি হিসাবে লোহাগড়া উপজেলা ও নড়াগাতি থানা আওয়ামীলীগের সম্মেলন ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে।

আগামী ৩ ডিসেম্বর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনকে সামনে রেখে প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান সভাপতি-সম্পাদক।