মেসির সুরও রোনালদোর কণ্ঠে

51

নড়াইল কণ্ঠ ডেস্ক : চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রোনালদোর সঙ্গে সেই লড়াই মিস করছেন বলে জানিয়েছিলেন আর্জেন্টাইন সুপারস্টার। এবার হাহাকার দেখা গেল রোনালদোর কণ্ঠেও। পর্তুগিজ যুবরাজও মেসির মতো করে বললেন, ‘এই লড়াই আমাদের আরো পরিণত ফুটবলার হতে সহায়তা করেছে। তীব্র এই প্রতিযোগিতা আমাদের দুজনের জন্যই ভালো ছিল।’
লিওনেল মেসি ও ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর ব্যক্তিগত নৈপুণ্য প্রদর্শনীর লড়াই ‘এল ক্লাসিকো’ রোমাঞ্চে যোগ করেছিল অনন্য মাত্রা। স্প্যানিশ লা লিগার গুরুত্বও বাড়িয়ে দিয়েছিল কয়েকগুণ। গত বছরের মাঝপথ থেকে স্প্যানিশ লিগ ও ‘এল ক্লাসিকো’ রোমাঞ্চে কিছুটা হলেও ভাটা পড়েছে। লা লিগায় নিঃসঙ্গ মেসিকে দেখা যাচ্ছে।
মাঠের মতোই বাইরেও নাকি দুজনের মধ্যে সুসম্পর্ক ছিল না। কয়েক বছর ধরে এমনটাই দাবি করেছে বিশ্ব মিডিয়া। যদিও গণমাধ্যমের এই দাবি নাকচ করে দিয়েছেন মেসি। রোনালদোও ঠিক তাই করলেন। ফ্রান্স ফুটবলকে পর্তুগিজ যুজরাজ বলেছেন, ‘অনেক মানুষই বলেন, আমরা নাকি এনে অন্যকে দেখতে পারি না। কিন্তু আমরাই একে অন্যকে আরো ভালো করার অনুপ্রেরণা জুগিয়েছি।’
কয়েকদিন আগে প্রচারমাধ্যমকে ঠিক একই রকম কথা বলেছিলেন বার্সেলোনা অধিনায়ক মেসি। তার পেশাদার ফুটবল ক্যারিয়ারের পুরোটা সময় ন্যু ক্যাম্পেই কেটেছে। কদিন আগে বার্সা অধ্যায়ের দেড় দশক পূরণ করেছেন মেসি। তার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রোনালদো রিয়াল মাদ্রিদে ছিলেন দীর্ঘ নয় বছর। এরপর চলে গেছেন জুভেন্টাসে।
ইতিহাসের ষষ্ঠ ফুটবলার হিসেবে কদিন আগে সাত’শ গোলের মাইলফলক স্পর্শ করেছেন রোনালদো। এই সাফল্যের রহস্য কী? রোনালদো জানালেন সাফল্যের তার রেসিপি, ‘প্রথমত, আপনার প্রতিভা থাকতে হবে। অন্যথায় আপনি এমনকিছু করতে পারবেন না। পরিশ্রম না করলে প্রতিভার কোনো দাম নেই। আমি কখনোই এই জায়গায় আসতে পারতাম না, যদি কঠোর পরিশ্রম না করতাম।’
৭০০ গোলের কীর্তি নিয়ে স্বাভাবিকভাবেই গর্বিত রোনালদো বলেছেন, ‘৭০০ গোলের মাইলফলক ছোঁয়ায় আমি গর্বিত। এটা ভাবতেই দারুণ লাগে যে খুব কম খেলোয়াড়ই এখানে পৌঁছাতে পেরেছেন। আমাকে যদি পছন্দের গোলের কথা বলা হয়, আমি বলব জুভেন্টাসের বিরুদ্ধে গোল করা। কারণ আমি বছরের পর বছর ওদের বিপক্ষে গোল করার চেষ্টা করেছি।’
রোনালদো আরো বলেছেন, ‘আমি যা বলছি সত্যি বলছি। আমি ম্যানচেস্টারের সময়গুলোর চেয়ে মাদ্রিদের বাস্তবতা নিয়ে বেশি ভেবেছিলাম। এটা ছিল আমাদের একটা চমৎকার প্রতিযোগিতা। আমরা আমাদের ক্লাবের প্রতীক হয়ে উঠেছিলাম। আমরা দুজনই সবসময় চেষ্টা করি মাঠে শতভাগ নিংড়ে দেওয়ার।’
ক্যারিয়ারজুড়ে প্রায়সবার ভালোবাসায় সিক্ত হয়েছেন রোনালদো। কিছু মানুষের সমালোচনার লক্ষ্যবস্তুও হতে হয়েছে তাকে। এখানো নিন্দুকদের তির বুক পেতে নিতে হচ্ছে তাকে। সেইসব নিন্দুকের উদ্দেশে রোনালদো বলেছেন, ‘আমার সম্পর্কে কে কী বলে সব আমি শুনি। আমার ক্যারিয়ার শেষে এসবকিছু থেমে যাবে। আমিও তখন কিছু মনে করব না। কারণ আমি সবকিছু থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবো।’