‘উন্নয়ন কার্যক্রম দুদক ও দুপ্রক পর্যবেক্ষণ করবে’ -দুদক কমিশনার (তদন্ত)

57

নড়াইল : ‘জেলার সকল অবকাঠমো উন্নয়নসহ অন্যান্য কার্যক্রম মানসম্মত বাস্তবায়নের লক্ষ্যে দুর্নীতি দমন কমিশন এবং আমাদের দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি (দুপ্রক) সামাজিক পর্যবেক্ষণ ও সংশ্লিষ্ট এলাকার মানুষকে উদ্বুদ্ধকরণের কাজ করবে।’ বুধবার (২৫ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টায় নড়াইল সার্কিট হাউসে দুর্নীতি প্রতিরোধ কার্যক্রম জোরদারকরণের লক্ষ্যে জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাথে মতবিনিময়কালে দুর্নীতি দমন কমিশনের মাননীয় কমিশনার (তদন্ত) এ এফ এম আমিনুল ইসলাম এ কথা বলেন। এসময় নড়াইল পৌরসভার ওয়াটার টিটমেন্ট প্লান্ট প্রস্তুত, অথচ কেন এখনও চালু হয়নি এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে তিনি বিষয়টি দ্রুত তদন্ত করে রিপোর্টর করার নির্দেশ দেন দুদক যশোরের কর্মকর্তাকে।
মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন দুপ্রক জেলা কমিটির সভাপতি ও আব্দুল হাই সিটি কলেজের অধ্যক্ষ মো: মনিরুজ্জামান মল্লিক।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, নড়াইলের জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা, দুদক খুলনা বিভাগীয় পরিচালক আব্দুল গাফ্ফার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্কেল) শেখ এমরান হোসেন, দুদক সমন্বিত যশোরের উপ-পরিচালক নাজমুছাদাত, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের সহকারি প্রকৌশলী মো: আশরাফুল হক, নড়াইল জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস, জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক কাজী হাফিজুর রহমানসহ দুপ্রকের অন্যান্য সদস্যবৃন্দ।
এরপর তিনি এস এম সুলতান বেঙ্গল চারু ও কারুকলা মহাবিদ্যালয়ের ভবন, শিবসংকর বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, পৌর মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও আব্দুল হাই সিটি কলেজের ভবন এর ভিত্তিপ্রস্তর ফলক উন্মোচন করেন। শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের অর্থায়নে প্রতিটি ভবন ৮৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ হবে।
ভবনের ভিত্তিপ্রস্তুর ফলক উন্মোচনকালে জানান যায়, দুর্নীতি দমন কমিশনের মাননীয় কমিশনার (তদন্ত) এ এফ এম আমিনুল ইসলামের প্রচেষ্টায় এ জেলায় এ বছরে মোট ৪২টি প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও কলেজ পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভবন নির্মাণের জন্য বরাদ্দ পেয়েছে। এ প্রচেষ্টা অব্যহত থাকলে এ জেলায় কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ভবন বিহীন থাকবে না।