কালিয়ায় স্বল্পমূল্যের চালসহ একজন আটক, মামলা দায়ের

37

নড়াইল কণ্ঠ : নড়াইলের কালিয়া থানা পুলিশ মঙ্গলবার রাতে হতদরিদ্রদের মধ্যে কার্ডের ভিত্তিতে ডিলারের মাধ্যমে স্বল্পমূল্যে বিক্রির জন্য বরাদ্দকৃত ১০৫ বস্তা চালসহ একজনকে আটক করেছে। কালিয়া পৌর সভার কুলসুর গ্রামের মিকাইল সরদারের বাড়ি থেকে ওই চাল উদ্ধার করাসহ মিকাইল সরদারকে (৫৫) আটক করেছে। ওই ঘটনায় উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা বাদি হয়ে বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) সকালে দু’জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন।
মামলার বিবরণে জানা যায়, উপজেলার হামিদপুর ইউনিয়নে হতদরিদ্রদের মাঝে কার্ডের মাধ্যমে স্বল্পমূল্যে বিক্রির জন্য জনপ্রতি ৩০কেজি হারে ৩৮৭ টি কার্ডের অনুকুলে ৩৮৭বস্তা চাল বরাদ্দ দেয়া হয়। কিন্তু হামিদপুর ইউনিয়নের ডিলার মোল্যা কামাল ওই চালের কার্ডধারিদের নিকট বিক্রি না করে অধিক মূল্যে কালোবাজারে বিক্রি করে দিয়েছে। কালিয়া থানা পুলিশ ওই রাত ১০টার দিকে কুলসুর গ্রামের মৃত আবুবক্কার সরদারের ছেলে মিকাইল সরদারের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ৩০কেজি ওজনের ১০৫বস্তা চাল আটক করে। হতদরিদ্রদের জন্য ১০টাকা মূল্যের চাল কালোবাজারে বিক্রির অভিযোগে উপজেলার মাধবপাশা গ্রামের মৃত অজেদ মোল্যার ছেলে ও হামিদপুর ইউনিয়নের ওএমএস ডিলার মোল্যা কামাল হোসেন ও মিকাইল সরদারকে আসামী করে উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা মো. মেহেদী হাসান বাদি হয়ে কালিয়া থানায় মামলাটি দায়ের করেন।
এ প্রসঙ্গে হামিদপুর ইউনিয়নের ওএমএস ডিলার মোল্যা কামাল হোসেন বলেন,‘যথারীতি কার্ডধারীতে চাল বিতরণ করা হয়েছে।তারা চাল নিয়ে বাইরে ব্যবসায়ীদের নিকট বিক্রী করলে আমার কিছু করার নেই।সরবরাহকৃত চালের সঠিক হিসাব আমার নিকট রয়েছে।ষড়যন্ত্র মূলকভাবে আমাকে জড়ানো হয়েছে।এসবের কিছুই আমি জানিনা।’
কালিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো.ইকরাম হোসেন যুগান্তরকে বলেন,‘ওই ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে। আটক মিকাইল সরদারকে বুধবার আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। ডিলার কামাল পলাতক রয়েছে।’