তৃতীয় পেসার হবেন কে? সাইফউদ্দীন নাকি রুবেল?

40

নড়াইল কণ্ঠ ডেস্ক : ইংল্যান্ডে তিন পেসার নিয়ে খেলা অবধারিত। বাংলাদেশ পেস আক্রমণে মাশরাফি-মোস্তাফিজ ‘অটোমেটিক চয়েস’ ধরলে তৃতীয় পেসার হবেন কে? সাইফউদ্দীন নাকি রুবেল?

চোটে পড়েছেন। নিজেকে পূর্ণ ফিট বানাতে ফিজিওর সঙ্গে সময় কাটছে সাইফউদ্দীনের। পুরো ফিট হলে মাশরাফি আর মোস্তাফিজের সঙ্গে তৃতীয় পেসার হওয়ার সম্ভাবনা তাঁরই বেশি।

এদিকে সকালে ওভালের মাঝ উইকেটের পাশে বসে গেল অধিনায়কদের মিলনমেলা! হাবিবুল বাশার, যাঁর নেতৃত্ব প্রথম দেখা গিয়েছিল ‘অন্য বাংলাদেশ’কে। খালেদ মাহমুদ, যিনি অধিনায়কত্ব হাতে তুলে নিয়েছিলেন এক ক্রান্তিকালে। ২০০৩ বিশ্বকাপে বিপর্যয়ের পর দেশের ক্রিকেট তখন রীতিমতো পথহারা! সেই ভরাডুবির পর বাংলাদেশ দলকে টেনে তুলেছিলেন তিনিই। আর মাশরাফি বিন মুর্তজা, যাঁর নেতৃত্বে বাংলাদেশ লিখে চলেছে একের পর এক কাব্যগাথা।

অন্যদিকে, খালেদ মাহমুদ লন্ডনে এসেছেন দলের ম্যানেজার হয়ে আর হাবিবুল নির্বাচক হিসেবে। সাবেক দুই অধিনায়কের সঙ্গে ‘আড্ডা’ শেষে মাশরাফি ফিরে গেলেন ড্রেসিংরুমে। নেটমুখো আর হলেনই না। অধিনায়ক আজও বোলিং করেননি। ভারতের বিপক্ষে হ্যামস্ট্রিং চোট এক তাঁকে স্পেলের বেশি বোলিং করতে দেয়নি। সতর্কতাবশতই হয়তো আজ বোলিং করেননি মাশরাফি। তবে পরশু দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে অধিনায়ককে ছাড়া নামবে, বাংলাদেশ সেটি চিন্তাই করছে না। মাশরাফি বোলিং না করলেও মোস্তাফিজুর রহমান হাত ঘুরিয়েছেন নেটে। নতুন করে কোনো চোটের দুঃসংবাদ না থাকলে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে মাশরাফি-মোস্তাফিজকে ধরে যে পেস আক্রমণ সাজানো হচ্ছে, সেটি বলাই যায়। তাহলে তৃতীয় পেসারটা কে—সাইফউদ্দীন না রুবেল হোসেন?

সাইফউদ্দীন
আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজটা দুর্দান্ত গেছে তাঁর। নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ব্রেক থ্রু এনে দিয়েছেন। ইকোনমি ৪.৯৫ অধিনায়ককে নিয়মিত স্বস্তি দিয়েছে। ভারতের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচেও খারাপ করেননি, দুর্দান্ত এক ইয়র্কারে বোল্ড করেছেন বিরাট কোহলিকে। পারফরম্যান্স নয়, সাইফউদ্দীনকে নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে পিঠের চোট।

রুবেল হোসেন
রুবেল এগিয়ে থাকছেন ফিটনেসের দিক দিয়ে। আক্রমণাত্মক বোলিং তাঁর মূল শক্তি। আক্রমণাত্মক হতে গিয়ে ভারতের বিপক্ষে অবশ্য বেশ মার খেয়েছেন। ম্যাচের পর মাশরাফি বেশ আফসোস নিয়ে বলছিলেন, ‘দেখলেন, রুবেল ভালো করেও মার খেল!’ ব্যয়বহুল বোলিংয়ের আশঙ্কা থাকার পরও রুবেলকে একাদশে সুযোগ করে দিতে পারে সাইফউদ্দীনের চোট।

সাইফউদ্দীন বনাম রুবেল: ‘মাস্টার’ কী বলেন
বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়েরা পেস বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশকে ডাকেন ‘মাস্টার’ বলে। তা রুবেল-সাইফউদ্দীন প্রশ্নে ক্যারিবীয় পেস কিংবদন্তি কাকে বেছে নিচ্ছেন? ‘বিশ্বকাপের আগে রুবেল খুব বেশি ম্যাচ খেলেননি। তবে তাকে পাওয়াটা ভালো। যদি তিন পেসার নিয়ে খেলেন, গত কিছুদিনে যারা বেশি খেলছে, তারাই সুযোগ পাবে। বিষয়টা হচ্ছে, সাইফউদ্দীন চোটে পড়েছে। একাদশে তাই পরিবর্তন হলেও হতে পারে। তবে কাকে বেছে নেওয়া হবে, সেটি বলা মুশকিল। ম্যাচের দিন যে বেশি ফিট সে আগে বিবেচিত হয়। যদি কালকের মধ্যে সাইফউদ্দীন ফিট না হয়ে ওঠে তখন আমরা বিকল্প চিন্তা করব। এ ধরনের বিকল্প থাকা সব সময়ই ভালো। আমরা এ মুহূর্তে ভীষণ আত্মবিশ্বাসী, বিশেষ করে বোলারদের কথা যদি বলেন। কালই আমরা ঠিক করব একাদশ। তবে এ প্রতিদ্বন্দ্বিতা দলের জন্যই ভালো’—ওয়ালশের কথায় কী বুঝলেন?

সাইফউদ্দীন ফিট থাকলে রুবেলকে থাকতে হবে সাইড বেঞ্চে।