নড়াইলে স্কুলছাত্রীকে হাতুড়িপেটা ঘটনার মূলহোতা ওবায়দুর গ্রেফতার

88

নড়াইল কণ্ঠ : নড়াইল জেলার লাহুড়িয়া গ্রামের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী সুবর্ণাকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করার ঘটনার মূলহোতা ওবায়দুর রহমানকে (২২) দু’দিনের মধ্যে চট্রগ্রাম থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত সোমবার (২৭ মে) রাত ১০টার দিকে চট্টগ্রামের ষোলো শহরের বস্তি থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা (আইও) মনিরুল ইসলাম, লোহাগড়া থানার এসআই মিলটন কুমার দেবদাস ও আতিকুজ্জামান বখাটে ওবায়দুরকে গ্রেফতার করেন। তথ্যপ্রযুক্তির সাহায্যে ওবায়দুরের অবস্থান সনাক্ত করার পর চট্টগ্রামের ষোলো শহরের ফরেস্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউটের পেছনের বস্তি হতে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

এদিকে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার) সাংবাদিকদের জানান, ঘটনার পর থেকেই ওবায়দুরকে আমাদের গ্রেফতার চেষ্টা অব্যাহত ছিল। দু’দিনের ভেতর তাকে আমরা গ্রেফতার করেছি। এর আগে ঘটনার দিন গত শনিবার (২৫ মে) দুপুরে ওবায়দুরের সহযোগি কাবুল জমাদ্দারকে (২৫) গ্রেফতার এবং হাতুড়ি উদ্ধার করা হয়।
পুলিশ ও ভূক্তভোগী সুবর্ণার পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গত ২৫ মে শনিবার সকাল ৬টার দিকে নড়াইলের লোহাগড়ার উপজেলার লাহুড়িয়ার হাজী মোফাজ্জেল স্বরণী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী সুর্বণাকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে উচ্চ মাধ্যমিক ফলপ্রার্থী ওবায়দুর রহমান ও তার সহযোগি দীননাথপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি কাম নৈশপ্রহরী কাবুল জমাদ্দার। প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় লাহুড়িয়ার গোবিন্দপাড়ায় ওই দুই বখাটে সুবর্ণার ওপর হামলা চালায়। কাবুল লাহুড়িয়ার দীননাথপাড়ার আজিজার জমাদ্দারের ছেলে এবং ওবায়দুর একই পাড়ার আজমল মোল্যার ছেলে।
পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী সুর্বণাকে বিদ্যালয় ও প্রাইভেট পড়তে যাওয়া-আসার পথে বখাটে ওবায়দুর প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। ২৫ মে সকালে বাড়ি থেকে প্রাইভেট পড়তে যাওয়ার সময় ওবায়দুর ও কাবুল তার পথরোধ করার চেষ্টা করে আবারো প্রেমের প্রস্তাব দেয়। প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তারা দু’জন সুবর্ণাকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে বলে অভিযোগ রয়েছে। ছাত্রীর চিৎকারে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে বখাটেরা পালিয়ে যায়। আহত ওই ছাত্রী নড়াইল সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে।
সুবর্ণা বলে, ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ার সময় থেকেই আমাকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল ওবায়দুর। আমি তার প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছি। বিষয়টি অভিভাবকসহ অন্যদের জানালে ওবায়দুর ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। এমনকি অ্যাসিড দিয়ে আমার মুখ নষ্ট করে দেয়ার কথা বলে।
এদিকে আহত স্কুলছাত্রীর পাশে দাঁড়িয়েছেন ক্রিকেটার ও নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা। মাশরাফী নিজের ঘনিষ্টজনের মাধ্যমে গত রবিবার (২৬ মে) ওই ছাত্রীর খোঁজখবর নিয়েছেন। তার চিকিৎসার যাবতীয় ব্যয়ভার বহনের আশ্বাস দিয়েছেন। সাংসদের সমাজসেবা বিষয়ক প্রতিনিধি মো. রাসেল বিল্লাহ জানান, সাংসদের নিজস্ব অর্থায়নে ইতিমধ্যেই ওই ছাত্রীর চিকিৎসার জন্য ওষুধ কিনে দেওয়া হয়েছে এবং খাবার দেওয়া হচ্ছে। চিকিৎসকদের সঙ্গে তার চিকিৎসার বিষয়ে কথা হচ্ছে। চিকিৎসার যাবতীয় ব্যয় সাংসদ বহন করবেন। জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিনসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা আহত স্কুলছাত্রীর চিকিৎসার খোঁজখবর নেন।