পরিশেষে নড়াইলে সরাসরি কৃষক থেকে ধান সংগ্রহ শুরু

0
45

খাদ্যগুদামে ধান বিক্রি করতে আসা কৃষকরা মাশরাফী’র জন্য দোয়া চাইলেন
নড়াইল কণ্ঠ : পরিশেষে নড়াইল সদরে সরাসরি প্রকৃত কৃষক থেকে ধান কেনা শুরু হয়েছে। এবার সরাসরি খাদ্যগুদামে সরকার নির্ধারিত মূল্যে ধান বিক্রি করতে পেরে খুবই খুশি কৃষকরা। রবিবার (২৬ মে) সকাল ১০টায় নড়াইল সদর খাদ্যগুদামে সরাসরি কৃষক থেকে ধান কেনা কার্যক্রম শুরু করেন জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন নড়াইল সদরের উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সালমা সেলিম, জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক (ভারপ্রাপ্ত) মনোতোষ কুমার মজুমদার, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: জাহিদুল ইসলাম বিশ্বাস, সদর খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তৈয়েবুর রহমান, নড়াইল-২ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার কৃষি বিষয়ক প্রতিনিধি মো: তাজুল ইসলাম, বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলোক্টোনিক মিডয়ার প্রতিনিধিবৃন্দ।
অফিস সূত্রে জানাযায়, একজন কৃষক সর্বনি¤œ ১২০ কেজি এবং সর্বোচ্চ এক হাজার কেজি ধান সরকারের নির্ধারিত ক্রয় কেন্দ্রে গিয়ে ২৬ টাকা প্রতি কেজি দরে বিক্রি করতে পারবেন। তবে কৃষকের কৃষি কার্ড, এনআইডি, ব্যাংক হিসাব এবং তার নাম ধান দেয়ার তালিকায় থাকলেই তিনি ধান দিতে পারবেন।

জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, জেলায় মোট ১৪৫৯ মেট্রিকটন ধান সংগ্রহ করা হবে। এর মধ্যে সদরে ৬৬২মেট্রিকটন, লোহাগড়ায় ২৬৪ মেট্রিকটন এবং কালিয়ায় ৫৩৩ মেট্রিকটন ধান সংগ্রহের কথা রয়েছে।
এর আগে গত ২০ মে মাশরাফি ধান সংগ্রহের তাগিদ দিলেও তা সময়মতো শুরু না করায় কৃষকদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে। এরই মধ্যে লোহাগড়া ও কালিয়া উপজেলায় ধান সংগ্রহ শুরু হলেও তালিকা তৈরি করতে দেরি হওয়ার কারণে নড়াইল সদরে ধান সংগ্রহ দেরিতে শুরু হয়।
সদর উপজেলা খাদ্যগুদাম সূত্রে জানা গেছে, নড়াইল উপজেলার ৬৬২ মেট্রিকটন ধান সংগ্রহের জন্য ১৭ শ কৃষকের তালিকা করা হয়েছে। এদের মধ্যে সর্বোচ্চ ৩ টন এবং সর্বনিম্ন ৩ মণ ধান দিতে পারবেন কৃষকেরা।
নড়াইল সদর ভারপ্রাপ্ত খাদ্যগুদাম কর্মকর্তা মো. তৈয়েবুর রহমান বলেন, আমরা কৃষকের বাড়ি গিয়ে গুদামে সংগ্রহের সরকারি নীতিমালা প্রচার করেছি। আশা করি সেই মোতাবেক ধান তারা নিয়ে আসবেন। এখানে কোনো মধ্যস্বত্বভোগীদের আশ্রয় দেওয়া হবে না।
নড়াইল জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মনোতোষ মজুমদার বলেন, বরাদ্দের অপ্রতুলতার মধ্যেও অধিক সংখ্যক কৃষক যাতে সরকারি মূল্যে ধান বিক্রি করতে পারে সে জন্য তালিকা তৈরিতে কিছুটা সময় লেগেছে। আমরা প্রান্তিক এবং নারী কৃষকদের অগ্রাধিকার দিয়েছি। আশা করি প্রত্যেক কৃষক তাদের ধান ঠিকমতো দিতে পারবেন।
উল্লেখ্য, ১৯ মে রাতে এমপি মাশারাফীর মুঠেফোন, সোমবার দেশের সকল পত্র পত্রিকায় ভাইরাল, ২১ মে মঙ্গলবার সংবাদ কর্মীদের সাথে ডিসি’র মতবিনিময় এবং একইদিনে মাঠ পর্যায় সরাসরি প্রকৃত কৃষক থেকে ধান কেনার প্রচারনা চালান ডিসি, ইউএনও, খাদ্য ও কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here