কৃষক থেকে সরাসরি ধান কেনার নির্দেশ দিলেন মাশরাফী

93

নড়াইল কণ্ঠ :নড়াইল-২ আসনের (৯৪) জাতীয় সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফী বিন মর্তুজা কৃষক থেকে সরাসরি ধান ক্রয়ের নির্দেশ দিয়েছেন। গত রবিবার (১৯ মে) রাত আনুমানিক ১০টার দিকে মুঠোফোনে তিনি জেলা প্রশাসককে এ বার্তা দেন।
এদিকে জানাগেছে, ত্রিদেশীয় সিরিজে চ্যাম্পিয়ান ট্রফি জয়ের পর গত শনিবার ১৮ মে ১১টার দিকে দেশে ফিরে এসেছেন অধিনায়ক মাশরাফী বিন মর্তুজা।
দেশে ফিরে তিনি খোজখবর নিয়ে জানতে পারেন যে, প্রকৃত কৃষকরা ধানের ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। তাদের ধান উৎপাদনের খরচটাও উঠছে না। সরকার যেখানে মণ প্রতি ধান ক্রয় করছে এক হাজার ৪০ টাকা সেখানে নড়াইলের বিভিন্ন হাট-বাজারে প্রকৃত কৃষকদের ধান বিক্রি করতে হচ্ছে সাড়ে ৬০০ থেকে ৭০০ টাকা।
এহে পরিস্থিতি এমপি মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা জানার পর গত রবিবার রাত ১০টার দিকে তিনি জেলা প্রশাসক আনজুমান আরাকে মুঠোফোনে সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ধান ক্রয় করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন।
এ সময় মাশরাফী বলেন, ‘কোনো সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ধান ক্রয় করা হচ্ছে এবং তার এমন প্রমাণ পেলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা মাশরাফির ফোনের বিষয়টি নিশ্চিত করে নড়াইল কণ্ঠকে জানান, ‘আমরাও চাই কৃষকরা যাতে তাদের কষ্টে উৎপাদিত ধানের ন্যায্য মূল্য পায়। এ জন্য সকলের সহযোগিতাও কামনা করছি।
বিষয়টি নড়াইল সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো: জাহিদুল ইসলাম বিশ্বাস নিশ্চিত করে নড়াইল কণ্ঠকে জানান, নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা আমাকে নিয়ম মেনে সরাসরি কৃষকদের থেকে ধান ক্রয়ের জন্য বলেন। তিনি আমাকে আরো বলেছেন, আপনারা নিয়ম না মেনে কাজ করলে আমি আপনাদের সাথে নেই।
এ দিকে কৃষি অফিসার ধান সংগ্রহ কমিটির সম্পর্কে জানান, বাছাই কমিটি কৃষক তালিকা যাচাই-বাছাই করবেন, এ ব্যাপারে আপনাদের সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন।
এদিকে নড়াইলের জেলা খাদ্য কর্মকর্তা মনোতোষ কুমার মজুমদার (ভারপ্রাপ্ত) জানান, জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা স্যার আমাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন এবং এমপি মহোদয়ের নির্দেশনায় আগামি ২১ মে মঙ্গলবার সকাল ১১টায় সদরের মাইজপাড়া ইউনিয়নে সরাসরি মাঠ পর্যায় কৃষকদের থেকে ধান ক্রয় শুরু করা হবে।
উল্লেখ্য, এ বোরো মৌসুমে নড়াইল জেলায় ৪৪ হাজার ৫৮০ হেক্টর জমি আবাদের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে আবাদ হয়েছে ৪৬ হাজার ৬৪০ হেক্টর জমিতে। ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা এক লাখ ৯৪ হাজার ৪০৫ টন। এ লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে মাত্র এক হাজার ৪০০ টন ধান সংগ্রহ হবে জেলায়।
জেলা খাদ্য দপ্তরের তথ্য মতে, ৫ মে থেকে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত মোট তিন হাজার ৯০৮ টন চাল এবং এক হাজার ৪৫৯ টন ধান সংগ্রহ করা হবে। চালকলগুলো থেকে চাল ও তালিকাভুক্ত কৃষকদের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ করে তা গুদামে সংরক্ষণ করা হবে।