নড়াইলে উপজেলা চেয়ারম্যানের ওপর হামলা ও ধানের শীষের পোষ্টারে অগ্নি সংযোগের অভিযোগ

162

নড়াইল কণ্ঠ : নড়াইলের কালিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান খান শামিমুর রহমানের ওপর হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা ও নড়াইল-১ আসনের বিএনপি প্রার্থী বিশ্বাস জাহাঙ্গির আলমের কালিয়া পৌর এলাকার বাড়ি ভাংচুর, ধানের শীষের পোষ্টারে অগ্নি সংযোগের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এছাড়া চেয়ারম্যান খান শামিমুর রহমানের সাথে থাকা লোকজনকে আহত করা এবং নড়াইল-১ এর নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন স্থানে বিএনপি সমর্থকদের কয়েকটি দোকান ভাংচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় কালিয়া উপজেলার খাশিয়াল বাজারে বিএনপির নির্বাচনী কার্যালয়ের চেয়ার-টেবিল ভাংচুর করা হয়েছে। কালিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান আ’লীগ নেতা খান শামীমুর রহমান ওসিকে হত্যার উদ্দেশ্যে আহত করার অভিযোগে পাল্টাপাল্টি উভয় দলের নেতাকর্মীরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
স্থানীয়রা জানান, ১৪ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় খাশিয়াল বাজারে বিএনপি কর্মীদের সাথে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে কালিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান আ’লীগ নেতা খান শামীমুর রহমান ওসিকে বিএনপি কর্মীরা মারাত্মকভাবে আহত করে। এ ঘটনায় তিনিসহ আরও ২জন আহত হন। আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে আ’লীগ নেতাকর্মীরা নড়াইল-১ আসনের বিএনপি’র প্রার্থী বিশ্বাস জাহাঙ্গির আলমের কালিয়া শহরের বাড়িতে ভাংচুর ও ধানের শীষের পোষ্টার বাড়িতে অগ্নি সংযোগ করে। পরে নড়াইল থেকে ফায়ার সার্ভিস এসে আগুণ নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় ধানের শীষের প্রায় ২ লক্ষ পোষ্টার পুড়ে যায়।
এদিকে এ ঘটনায় উপজেলার জয়পুর মোড়ে বিএনপি কর্মী জাহাঙ্গির কাজী ও চুন্নু কাজীর মুদি দোকান ভাংচুর ও লুটপাট করা হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
বিএনপি প্রার্থী বিশ্বাস জাহাঙ্গির আলমের বাড়িতে অবস্থানরত বিএনপি নেতা মো: ইকরামুল হক জুলু জানান, আ’লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের প্রায় শতাধিক নেতাকর্মী বিশ্বাস জাহাঙ্গির আলমের বাড়ির গেটের তালা ভেঙ্গে প্রবেশ করে টিভি, ফ্রিজ, সোফা, গাসের চুলা, মটরসহ বিভিন্ন আসবার পত্র নিয়ে যায়। এ সময় ঘরের জানালা দরজাসহ অন্যান্য আসবারপত্র ভাংচুর করে আগুণ লাগিয়ে দেয়। এ সময় ধানের শীষের প্রায় ২ লক্ষাধিক পোষ্টার পুড়ে যায়।
এদিকে উজেলার জয়পুর মোড়ের মিজানুর কাজীর স্ত্রী আকাশি বেগম বলেন, বিএনপি করার অপরাধে তার দেবর জাহাঙ্গির কাজী ও চুন্নু কাজীর ২টি দোকান ভাংচুর করে প্রায় দেড় লক্ষ টাকার মালামাল নিয়ে গেছে আ’লীগের লোকজন।
খাশিয়াল বাজার এলাকার তামিম ও বালা মোল্যা জানান, উপজেলা চেয়ারম্যানের (আলীগের) লোকজন তাদের নির্বাচনী কার্যলয়ের চেয়ার টেবিল ভাংচুর করেছে, এসময় কার্যালয়ের পাশের কয়েকটি দোকানও ভাংচুর করা হয়।
এদিকে শনিবার(১৫ ডিসেম্বর) সকালে কালিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান আ’লীগ নেতা খান শামিমুর রহমান ওসিকে হত্যার উদ্দেশ্যে আহত করার প্রতিবাদে বড়দিয়া বাজারে দোকান পাঠ বন্ধ রেখে বিচারের দাবীতে এক বিক্ষোভ মিছিল বের করে আ’লীগের লোকজন। এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্ততি চলছে।
উপজেলা চেয়ারম্যান আ’লীগ নেতা খান শামিমুর রহমান ওসি বলেন, তাকে হত্যা করার উদ্দেশ্যে তার ওপর এ হামলা করা হয়। বিএনপি নেতাকর্মীদের বাড়িতে ভাংচুর ও পোষ্টারে আগুণ দেয়ার ঘটনার সাথে তার বা তার দলের (আ’লীগ) লোকজন জড়িত নয় বলে জানান তিনি।
বিএনপি প্রার্থী বিশ্বাস জাহাঙ্গির আলম জানান, তার নিজ বাড়িসহ নেতাকর্মীদের দোকানপাট ও নির্বাচনী কার্যালয় ভাংচুর করা হয়েছে। তার বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। নির্বাচন থেকে তাকে সরিয়ে রাখতেই এ সব ঘটনা ঘটানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। এ ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্বাচন কমিশনের প্রতি অনুরোধ করেছেন তিনি।
নড়াগাতি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন বলেন, এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। পরিস্থিত স্বাভাবিক আছে। কোন পক্ষ থেকে মামলা দায়ের হয়নি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা নেয়া হবে। কালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন বলেন লিখিত অভিযোগ পেলে ব্যাবস্থা নেয়া হবে।