প্রধানমন্ত্রীসহ যাঁরা মনোনয়নপত্র জমা দিলেন

0
8
Tuli-Art Buy Best Hosting In chif Rate In Bd

নড়াইল কণ্ঠ: দলীয় মনোনয়ন চূড়ান্ত হওয়ার পর এখন প্রার্থীরা সারা দেশে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তাদের কাছে মনোনয়নপত্র জমা দিচ্ছেন। গোপালগঞ্জ-৩ ও রংপুর-৬ আসনে মঙ্গলবার আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন দলীয় নেতারা। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকসহ বেশ কয়েকজন মন্ত্রী, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শীর্ষস্থানীয় নেতাসহ বিভিন্ন দলের প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নির্দেশনা অনুযায়ী, প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র জমার সময় সর্বোচ্চ পাঁচ থেকে সাতজন ব্যক্তিকে নিয়ে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে। কিন্তু গতকাল প্রার্থীদের কেউ কেউ তারও বেশি লোক নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন। তফসিল অনুযায়ী, আজ বুধবার মনোনয়নপত্র জমার শেষ দিন। বাছাই হবে ২ ডিসেম্বর। আর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ৯ ডিসেম্বর।

মঙ্গলবার দুপুরে গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ মোখলেসুর রহমানের কাছে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার জন্য গোপালগঞ্জ-৩ আসনের মনোনয়নপত্র জমা দেন দলের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ। এ সময় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদ, রেড ক্রিসেন্টের সাবেক চেয়ারম্যান শেখ কবির হোসেন, প্রধানমন্ত্রীর চাচাতো ভাই শেখ হেলাল উদ্দিন, শেখ হেলালের ছেলে বাগেরহাট-২ আসনের দলীয় প্রার্থী শেখ সারহান নাসের তন্ময়, যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুর রহমান মারুফ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এর আগে নেতারা টুঙ্গিপাড়ায় জাতির জনকের সমাধিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। টুঙ্গিপাড়া ও কোটালীপাড়ার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছেও প্রধানমন্ত্রীর মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া হয়েছে।

রংপুর-৬ (পীরগঞ্জ) আসনের জন্য দুপুরে পীরগঞ্জের ইউএনও এবং সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা তালুকদার মো. আবদুল মমিনের কাছে প্রথমে প্রধানমন্ত্রীর জন্য এবং পরে নিজের মনোনয়নপত্র জমা দেন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী। গত সংসদ নির্বাচনে এই আসনে শেখ হাসিনা সাংসদ নির্বাচিত হন। পরে গোপালগঞ্জ–৩ আসন রেখে এই আসন ছেড়ে দিলে উপনির্বাচনে শিরীন শারমিন চৌধুরী নির্বাচিত হন।

মনোনয়নপত্র দাখিলের পর শিরীন শারমিন চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, ‘দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী ও আমার নামে মনোনয়নপত্র দাখিল করলাম। শেষ পর্যন্ত কে প্রার্থী থাকবেন, সেটা দল ঠিক করবে।’ এ সময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কোষাধ্যক্ষ এইচ এন আশিকুর রহমানসহ স্থানীয় নেতারা।

ঢাকায় যাঁরা জমা দিলেন
রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে ঢাকা মহানগরীর ১৫টি সংসদীয় আসনের প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র জমা দিচ্ছেন। বিভাগীয় কমিশনার কে এম আলী আজম ঢাকা মহানগরী এলাকার নির্বাচনী আসনের রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করছেন। বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল বিকেল পর্যন্ত ২৫ জন প্রার্থী বিভিন্ন আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এর আগে এই কার্যালয়ে ২২টি মনোনয়নপত্র জমা হয়েছিল।

প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে মঙ্গলবার এখানে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। ঢাকা-৮ আসনের প্রার্থী হিসেবে তিনি মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। ঢাকা-১২ আসনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের পক্ষে তার বড় ভাই আকরামুজ্জামান খান ও তার ছেলে সাফি মোদাচ্ছের খান মনোনয়নপত্র জমা দেন। এ ছাড়া ঢাকা-৯ আসনে বর্তমান সাংসদ সাবের হোসেন চৌধুরী ও ঢাকা–১৫ আসনে কামাল আহমেদ মজুমদার মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তারা ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী।

মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পর রাশেদ খান মেনন সাংবাদিকদের বলেন, বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট প্রধান নির্বাচন কমিশনারের পদত্যাগসহ বিভিন্ন অভিযোগ করে নির্বাচন বানচালের ষড়যন্ত্র করছে। কিন্তু ভোট হতেই হবে।

সাবের হোসেন চৌধুরী বলেছেন, তিনি আশা করেন, নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ও অংশগ্রহণমূলক হবে। এর মাধ্যমে গণতন্ত্রের বিজয় হবে।
এ ছাড়া মঙ্গলবার মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির প্রার্থী সাজেদুল হক রুবেল (ঢাকা-১৫) ও আহসান হাবীব (ঢাকা-১৩)। ঢাকা-১৭ আসনে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০–দলীয় জোটের শরিক বিজেপির আন্দালিভ রহমান পার্থের পক্ষে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া হয়েছে। বাসদের শম্পা বসু ঢাকা–৮ আসনের জন্য মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

তবে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত বিএনপির কোনো প্রার্থীকে মনোনয়নপত্র জমা দিতে দেখা যায়নি।

ঢাকা বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে কোনো কোনো প্রার্থী ১০ থেকে ২০ জন বা তারও বেশি লোক নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিতে আসছেন। ফলে সেখানে একধরনের বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হচ্ছে।

‘বিএনপির ভাঙা হাট জমবে না’
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দুপুরে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের ইউএনও ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে ওই আসনের জন্য মনোনয়নপত্র জমা দেন। পরে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, বিএনপির ভাঙা হাট জমেনি, জমবেও না। দলছুট ও জনবিচ্ছিন্ন নেতারা যতই বিএনপির সঙ্গে হাত মিলিয়ে অপতৎপরতা চালাক, কোনো লাভ হবে না। তিনি বলেন, ‘ইনশা আল্লাহ, ডিসেম্বরে নৌকা ভাসতে ভাসতে বন্দরে পৌঁছাবে’। এ সময় স্থানীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

জাসদের সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু কুষ্টিয়া-২ (মিরপুর-ভেড়ামারা) আসনের জন্য দুপুরে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারার ইউএনও ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তিনি ১৪ দলের প্রার্থী।

এ ছাড়া আইনমন্ত্রী আনিসুল হক ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ (কসবা-আখাউড়া) আসনের জন্য আখাউড়ার ইউএনওর কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেন। দিনাজপুর-৪ (খানসামা-চিরিরবন্দর) আসনের জন্য দুই উপজেলাতেই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here