কৃষিতে নড়াইল সমৃদ্ধ , সার বিদ্যুৎ সংকটমুক্ত

0
20
Tuli-Art Buy Best Hosting In chif Rate In Bd

নড়াইল কণ্ঠ : চিত্রা, নবগঙ্গা মধুমতি, কাজলা বিধৌত নড়াইল। বিশ্ববরণ্যে চিত্রশিল্পী, বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ল্যান্স নায়েক নূর মোহাম্মদ শেখ, প্রখ্যাত নৃত্যশিল্পী উদয় শংকর, আধুনিক বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ধ্রুপদী সংগীতজ্ঞ রবী শংকর, সাহিত্যিক নীহাররঞ্জন গুপ্ত, বিশ্ব সংগীত শিল্পী কমল দাস গুপ্ত, কবিয়াল বিজয় সরকার, জারী স¤্রাট মোসলেম উদ্দীন বয়াতী, অবিভক্ত বাংলার স্পীকার সৈয়দ নওশের আলী, এ প্রজন্মের বাংলাদেশ জাতীয় ক্রীকেট দলের সফল অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা অসংখ্য গুণি ও মনীষীদের স্মৃতি বিজড়িত সাংস্কৃতির স্বপ্নপুরি জেলা নড়াইল। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে দ্বিতীয় বৃহত্তম মুক্তিযোদ্ধার জেলা, বৃটিশ বিরোধী স্বদেশী আন্দোলন, তেভাগা আন্দোলনের পুরধা অমল সেন। এ সকল মনীষীর কারণে এ জেলার মাটি ও মানুষ গর্বিত।

নড়াইলে আবাদি জমি রয়েছে ১লক্ষ ৬ হাজার ১৫০ একর এবং অনআবাদি জমি হিসেবে জমি রয়েছে ৩৬,২৭৯ একর। এ জেলায় বছরে ধান চাষ হয় ১লক্ষ ৮৯ হাজার ৬৫৬ একর জমিতে। এরমধ্যে দেশী বোরো চাষ হয় ৪৬৫ একর, উফসী বোরো ৫১,৮২২ একর, হাইব্রিড বোরো ৩৫,৩০৬ একর, দেশী বোনা আউশ ৯,৯২১ একর, উফসী রোপা আউশ ৩,০৮২ একর, দেশী বোনা আমন ২৯,৮৫৫ একর, উফসী রোপা আমন ৪৯,০১৫ একর, দেশী রোপা আমন ১০,১৯০ একর জমিতে। এ জেলায় পাট চাষ হয় পাট উফসী ৫৭,৯৮০ একর জমিতে। প্রতি বছর ৯,৯৫০ একর গম চাষ হয়। জেলায় ১১৫ হেক্টর জমিতে খেজুর গাছ রয়েছে। কৃষি বিভাগের সহযোগিতা পেলে এ জেলায় আরো কৃষি ফসলের আবাদ বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নড়াইল জেলা কৃষি সমৃদ্ধ জেলা। এ জেলা থেকে উৎপাদিত ধান জেলার চাহিদা মিটিয়ে বাইরে রপ্তানি করা হয়। নড়াইল জেলা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। বিগত সরকারের কৃষি উৎপাদনে চাষীরা চরম বিদ্যুৎ সংকট, সার সংকটে ছিলো। এ সরকারের নড়াইল জেলায় কৃষিতে পর্যাপ্ত ভর্তুকি পেয়ে উৎপাদনে সেরা জেলা হিসেবে রয়েছে। এ ধারা অব্যহত থাকলে নড়াইল জেলার উৎপাদিত কৃষি পণ্য নিজেদেও চাহিদা মিটিয়ে বাইরের জেলাতে যোগান অব্যহত রাখতে সক্ষম হবে মনে করেন নড়াইলের সংশ্লিষ্ট কৃষি অধিদপ্তরের কর্মকর্তাগণ।

এদিকে বর্তমান সরকারের বিগত ১০ বছরের ( ২০০৯-২০১৮) নড়াইল জেলার কৃষির অগ্রগতির একটি তুলনামূলক চিত্র নি¤েœ বর্ণিত হলো:
নড়াইল জেলার তিনটি উপজেলায় ‘চাষী পর্যায় উন্নতমানের ধান, গম ও পাটবীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ ও বিতরণ প্রকল্প ’ এর দক্ষতা ও পরিচর্যার উপর কৃষকদের প্রশিক্ষণ দেয় হয় ২৭৯০ জনকে, একই প্রকল্পের আওতায় বিগত সরকারের আমলে ৯০০জন কৃষকের মাঝে এ প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।
‘চাষী পর্যায় উন্নতমানের ডাল, তেল ও পেঁয়াজ বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ ও বিতরণ প্রকল্প ’ এ ২৭৬০ জন কৃষক, ২৭০ এসএএও-দের প্রশিক্ষণ এবং ২৬৯টি কৃষি মাঠ দিবস হয়। একই প্রকল্পে বিগত সরকারের আমলে ২১০জন কৃষক প্রশিক্ষণ ও ৬০ এসএএও-দের প্রশিক্ষণ দেয় হয়। কোন কৃষি মাঠ দিবস করা হয় না। উপজেলা পর্যায়ে প্রযুক্তি হস্তান্তরের জন্য কৃষক প্রশিক্ষণ প্রকল্প শুরু কওে বর্তমান সরকার। এ প্রকল্পের আওতায় নড়াইলে ৭৫০জন কৃষককে এ প্রযুক্তি বাস্তবায়ন উপযোগি করার জন্য ৭৫০জন কৃষককে প্রশিক্ষণ দেয় হয়। ন্যাশনাল এগ্রিকালচারাল টেকনোলজি প্রোগ্রাম ফেজ-১১ প্রকল্প (এনএটিপি-২) এর আওতায় বর্তমান সরকার টেকলোজি হস্তান্তর উপযোগি করার লক্ষ্যে ৮৭০০জন কৃষককে প্রশিক্ষণ দেয় এবং বর্তমান তারা মাঠ পর্যায় কার্যকরি ভুমিকা পালন করছে।

কৃষিতে আরো কার্যকর ভুমিকা রাখার জন্য কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও বিএডিসি নড়াইল জেলায় ৯,৫০৩টি স্যালো টিউবয়েল, ২,১০০টি পাওয়ার পাম্প , ১,২২৯ টি পাওয়ার ট্রেলার, ১৫,৩৪৪ টি ধান ঝাড়াই মেশিং, ৯৮ টি বীজ বপন মেশিং, ৯৯ টি ট্রাক্টর উপকরণ সহায়তা প্রদান করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here