নড়াইলে স্কুলছাত্রীর যৌন হয়রানির প্রতিবাদে মানববন্ধন

54

নড়াইল কণ্ঠ : নড়াইল সদর উপজেলার গোবরা প্রগতি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির জেএসসি পরীক্ষার্থীর যৌনহয়রানির প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে।
শনিবার (১৩ অক্টোবর) সকাল ১১টায় মহিদের হাতে নির্যাতিত এলাকাবাসির উদ্যোগে গোবরা প্রগতি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সামনের সড়কে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
মানববন্ধেন বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অপুর্ব কুমার বকশী, সহকারী শিক্ষক একলিম হোসেন, মিতা রানী, শিক্ষার্থী তিশা, খাদিজা আক্তার প্রমূখ।


মানববন্ধনে এ স্কুলের শিক্ষার্থী তিশা ও খাদিজা আক্তার প্রশাসন ও সমাজের কাছে দাবি জানায়, কোন মেয়ে যেন কারো দ্বারা উত্তক্ততার শীকার না হয় এবং আমরা যার জন্য মানবন্ধনে দাড়িয়েছি তার পড়ালেখা এবং নিরাপদে স্কুলে আসা-যাওয়া নিশ্চিত করতে হবে এবং উত্তক্তকারির দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

এলাকাবাসি জানাং, এলাকার কুখ্যাত সন্ত্রাসী মেয়েদের সাথে খারাপ ব্যবহার করে। এলাকার একটি মেয়েকে প্রতিনয়িত কুপ্রস্তাব দেয়। তার প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তার ও তার পরিবারের ওপর নানা ধরণের হুমকিধামকি দিয়ে যাচ্ছে। আমরা এলাকাবাসি মহিদের বিচার চাই।
বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক একলিম হোসেন বলেন, এ স্কুলের ৮ম শ্রেণির শিক্ষাক্ষার্থীকে পথেঘাটে উত্তক্ত করা হচ্ছে। যার ফলে মেয়েটির পড়ালেখা একেবারে বন্ধ হওয়ার পথে। এ ধরণের উত্তক্তকারিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি জানান শিক্ষকবৃন্দ।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অপুর্ব কুমার বকশী বলেন, এই বিদ্যালয়ে সে (ছাত্রী) গত বছর সপ্তম শ্রেণিতে ট্রান্সফরমের মাধ্যমে আমরা বোর্ডের অনুমতি সাপেক্ষ এ বিদ্যালয়ে ভর্তি করেছি। ভর্তি করার পরে অভিযুক্ত মহিদ তাকে নানাভাবে হয়রানি করছে। ভবিষত্যে যাতে এভাবে হয়রানি না করতে পারে সেজন্য প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষন করছি।

এ সময় বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও সিংগাশোলপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান উজ্জ্বল হোসেন জানান, এ ঘটনা নিয়ে আমি ইতিমধ্যে এ স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের সাথে সভা করেছি। সেখানে এলাকার আরো গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে উত্তক্তকারি মহিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণেরর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। সে সন্ত্রাসী নারীদের উত্তক্তকারি প্রকৃতির মানুষ।
শিক্ষার্থীর মা জানান, আমি অসহায় মানুষ। মহিদ নামের এ এলাকার সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক সে আমার মেয়েকে নানা ধরণের কুপ্রস্তাব দিয়ে প্রায় উত্তক্ত করে। তার প্রস্তাবে রাজি না হওয়া দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়েছে। আমি মহিদের শাস্তি চাই। আমার মেয়ের লেখাপড়া যাতে বন্ধ না হয় সে বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য সকলের সহযোগিতা চাই।

মানববন্ধন শেষে এলাকাবাসী বিক্ষোভ মিছিল করে। এসময় বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ এলকাবাসী উপস্থিত ছিলেন।

নড়াইল সদর থানার ওসি মো.আনোয়ার হোসেন জানান,ঘটনাটি আমাকে কেউ জানায়নি। তবে এজাতীয় ঘটনা সত্যি হলে তা মেনে নেয়া যায় না,আভিযোগ পেলে অবশ্যই যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।