নড়াইলে কমিউনিটি ক্লিনিকে রোগীরা বিনামূল্যে চিকিৎসা ও ওষুধ পাচ্ছে

22

নড়াইল কণ্ঠ ডেস্ক : জেলার তৃণমূল পর্যায়ে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করছে কমিউনিটি ক্লিনিকগুলো। জেলার ৯১টি কমিউিনিটি ক্লিনিকে প্রায় এক লাখ মানুষ চিকিৎসা সেবা পাচ্ছে প্রতি মাসে। এসব ক্লিনিককে সরকারের পক্ষ থেকে বিনামূল্যে ২৯ প্রকার ওষুধ প্রদান করা হচ্ছে।
সদর উপজেলার বনগ্রামের অনিতা বিশ্বাস ও শিপ্রা বিশ্বাস বলেন, আগে আমাদের সামান্য জ্বর হলে হাতুড়ে ডাক্তার বা সদর হাসপাতালে যেতে হত সময় ও টাকা ব্যয় করে। কমিউনিটি ক্লিনিক থাকায় আমরা সহজেই সেখান থেকে চিকিৎসা সেবা ও ওষুধ পাচ্ছি।
সাতঘরিয়া গ্রামের রিতা বিশ্বাস বলেন, আমরা আগে জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি সম্পর্কে জানতাম না তাই কোন পদ্ধতি ব্যবহার করতাম না। কমিউনিটি ক্লিনিক থেকে আমরা জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি সম্পর্কে জেনে তা গ্রহণ করতে পারছি।
মুলিয়া গ্রামের মিতা বিশ্বাস বলেন, বাড়ির পাশে কমিউনিটি ক্লিনিক হওয়ায় আমরা যে কোন প্রয়োজনে সেখান থেকে স্বাস্থ্যসেবা পাচ্ছি। প্রধানমন্ত্রী হাসিনাকে ভগবান শতবছর বাঁচায়ে রাখুক আমাগে সেবা করার জন্য।
সাতঘরিয়া কমিউনিটি ক্লিনিকের স্বাস্থ্য সহকারী সুজিত বিশ্বাস বলেন, কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোতে প্রাথমিক স্বাস্থ্য শিক্ষা ও চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়। জ্বর, সর্দি, কাশি, কৃমি, পুষ্টি মা ও শিশু স্বাস্থ্য, কিশোর-কিশোরী স্বাস্থ্য সেবাসহ বিভিন্ন ধরনের সংক্রামক রোগের চিকিৎসা, সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচি পালন করছে।
মাইজপাড়া উইনিয়নের ডহরতারাশি কমিউনিটি ক্লিনিকের দায়িত্বপ্রাপ্ত কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রভাইডার (সিএইচসিপি) ফরিদুল ইসলাম বলেন, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন এসেনসিয়াল ড্রাগস লিঃ এ প্রস্তুতকৃত ২৯ প্রকার ওষুধ এবং পরিবার পরিকল্পনা সংশ্লিষ্ট তিন প্রকার মোট ৩২ প্রকার ওষুধ সরবরাহ করা হয়ে থাকে। কমিনিটি কিøনিকগুলোতে প্রতিদিন ৪০ থেকে ৪৫ জন রোগীকে স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করা হয়ে থাকে।
সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা গেছে, জেলায় কমিউনিটি ক্লিনিক চালু রয়েছে ৯১টি। প্রতিদিন একটি কমিউনিটি ক্লিনিকে কমপক্ষে ৪০ জন রোগীকে স্বাস্থ্য সেবা দেয়া হয়ে থাকে। এতে জেলার ৯১ ক্লিনিকে ৩ হাজার ৬শ’ ৪০ জন রোগীকে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হচ্ছে প্রতিদিন। মাসে ৯৪ হাজার ৬শ’ ৪০ জনকে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়ে থাকে।
সরকারের পক্ষ থেকে এমোক্সাসিলিন ২৫০, পেনিসিলিন, কট্রিম, প্যারাসিটামল, এন্টাসিড, মেট্রোনিডাজল, জিংক, নিয়োমাইসিন অয়েনমেন্ট, জেনসন ভায়োলেন্ট, ভিটামিন বি কমপ্লেক্স, আয়রন ট্যাবলেট, খাবার স্যালাইনসহ ২৯ প্রকার ওষুধ বিতরণ করা হচ্ছে।
সিভিল সার্জন ডা. আসাদ-উজ-জামান মুন্সী বলেন, সরকারের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী স্বাস্থ্যসেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় জেলায় ৯১টি কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে তৃণমূলের প্রায় একলাখ রোগী প্রতিমাসে স্বাস্থ্যসেবা পাচ্ছে। পাশাপাশি বিভিন্ন প্রকার ২৯ প্রকার ওষুধ পাচ্ছে রোগীরা।