নড়াইলের শেখ রাসেল সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

0
49
Tuli-Art Buy Best Hosting In chif Rate In Bd

নড়াইল কণ্ঠ : নড়াইলবাসির দীর্ঘদিনের প্রত্যাশিত চিত্রা নদীর ওপর নির্মিত ‘শেখ রাসেল সেতু’র উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় গণভবন থেকে সরাসরি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সেতুটির উদ্বোধন করেন তিনি।

নড়াইল জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাভোকেট শেখ হাফিজুর রহমান, নড়াইলের নবাগত জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মো. সোহরাব হোসেন বিশ্বাস, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) কাজী মাহাবুবুর রশিদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. ইয়ারুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) কাজী মাহবুবুর রশীদ, গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো.আহসান হাবীব, এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী বিধান চন্দ্র সোমদ্দার, নড়াইল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস, সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন খান নিলু, লোহাগড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ ফয়জুল আমীর লিটুসহ জেলার বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি দফতরের কর্মকর্তা-কর্মচারী স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

স্থানীয় সরকার বিভাগ (এলজিইডি) নড়াইল অফিস সূত্রে জানা গেছে, নড়াইল শহরের প্রাণকেন্দ্র সাবেক ফেরিঘাটে একটি সেতু নির্মাণের দাবি ছিল দীর্ঘদিনের। গণমানুষের দাবির প্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) তত্ত্বাবধায়নে ২৯ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০১৫ সালের ৩০ এপ্রিল সেতুটির নির্মাণকাজ শুরু হয়।
১৪১ মিটার দৈর্ঘ্য মূল সেতুর বাইরে দু’পাশে ফ্লাইওভারের মতো দেখতে ভায়াডাক্টের দৈর্ঘ্য ২৩৮ মিটার। সেতুর প্রস্থ ১৮ ফুট। দুই পাশে অ্যাপ্রোচ সড়ক আছে ৪৩১ মিটার। ঢাকার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স এমবিইএল-ইউডিসি (জেভি) সেতুটি নির্মাণকাজ করেছে। সেতুটি নির্মাণকাজের সময়সীমা ২০১৭ সালের জুন পর্যন্ত থাকলেও নির্ধারিত সময়ের তিনমাস আগেই নির্মাণ কাজ শেষ হয়। তবে জনগণের চলাচলের সুবিধার্থে উদ্বোধন না করেই ২০১৭ সালের ২৬ মার্চ থেকেই চলাচল শুরু হয়।

চাঁচুড়ি বাজারের ব্যবসায়ী ওমর ফারুক জানান, নড়াইল ফেরিঘাটে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর থেকে যাত্রীদের নৌকায় পারাপার হতে সময় এবং অতিরিক্ত টাকা ব্যয় হতো। নৌকা চালকদের হাতে প্রতিনিয়ত মানুষ অপমান-অপদস্থ হতে হয়েছে। সেতুটি নির্মাণ হওয়ায় সব সমস্যার সমাধান হয়েছে। কালিয়া ও লোহাগড়া উপজেলাসহ পার্শ্ববর্তী জেলার লোকজন খুব সহজেই জেলা শহরে যাতায়াত করতে পারে। নড়াইল পৌরসভায় বসবাসকারি কয়েকজন সরকারি চাকুরিজীবী চিত্রানদীর ওপারে চাকুরি করেন। নিয়মিত জেলা শহর থেকে আউড়িয়া, ভদ্রবিলা, বাশগ্রাম, চাঁচুড়ি ইউনিয়নে যাতায়াত করেন। সেতুটি নির্মাণের আগে যে অসহনীয় দুর্ভোগ ছিল, এখন সবকিছুর থেকেই মানুষ মুক্তি পেয়েছে বলে তারা জানান। কারণ সেতুটি নির্মাণ হওয়ায় শহর থেকেই এখন যানবাহনে নির্দিষ্ট কর্মস্থলে চলাচল করা যায়।
জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক জেলা পরিষদের প্রশাসক অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস জানান, তিনি জেলা পরিষদের প্রশাসক থাকাকালীন সেতুটি নির্মাণের জন্য কাজ চালিয়ে যান। সেতুটি নির্মাণ হওয়ায় তিনি নড়াইল জেলাবাসীর পক্ষ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে অবহেলিত জেলার উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেন।
স্থানীয় সরকার বিভাগ এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী বিধান চন্দ্র সোমদ্দার বলেন, চিত্রানদীর ওপর নির্মিত ‘শেখ রাসেল সেতু’টি প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের মধ্যদিয়ে নড়াইলবাসীর দীর্ঘদিনের একটি দাবি পূরণ হয়েছে। এই সেতুর নির্মাণের ফলে শুধু নড়াইল জেলা নয়, পার্শ্ববর্তী জেলার লাখ লাখ মানুষ উপকৃত হবে। পার্শ্ববর্তী জেলা যশোর, সাতক্ষীরাসহ পাশের জেলার মানুষ এই সেতুর ওপর দিয়ে ভাটিয়াপাড়া, মাওয়া সড়ক দিয়ে খুব দ্রুত সময়ে রাজধানীতে পৌঁছাতে পারবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here