ছাত্রী খুন, ডাকাত দলের হাতে মা-ভাইকে কুপিয়ে জখম

26

ফাতেমা আক্তার (১৫) নামের এক স্কুল ছাত্রীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে ডাকাত সদস্যরা। মঙ্গলবার ভোর রাতে উপজেলার মুনসেফেরচর (ইটাখোলা) গ্রামের প্রবাসী মতিউর রহমানের বাড়িতে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ফাতেমার মা রাজিয়া বেগম ও ভাই রায়হানকেও কুপিয়ে জখম করেছে ডাকাতরা।
ফাতেমা মুনসেফেরচর এলাকার মৃত শহীদুল হক গাজীর মেয়ে ও স্থানীয় শাষপুর কাজী মফিজ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, ভোর রাতে ২০/২৫ জনের একদল ডাকাত বাড়ির কলাপসিবল গেইটের তালা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে। টের পেয়ে বাড়ির লোকজন চিৎকার শুরু করলে ডাকাত সদস্যরা এক ভরি স্বর্ণালংকার ও ৪টি মোবাইল সেট নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। এসময় রায়হান মিয়া এক ডাকাতকে ধরে ফেললে ডাকাতরা তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় কোপ মারে। এসময় রায়হানকে বাঁচাতে গেলে ছোট বোন ফাতেমা আক্তার ও মা রাজিয়া বেগমকে ছুরি দিয়ে আঘাত করে পালিয়ে যায় ডাকাতরা।
পরে স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে নরসিংদী জেলা হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ফাতেমা আক্তারকে মৃত ঘোষণা করেন। মা রাজিয়া বেগমকে গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্যে নরসিংদী সদর হাসপাতালে মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।
শিবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আবুল কালাম আজাদ বলেন, এ ঘটনায় হত্যাসহ পৃথক দুইটি আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছে।