আজ ঘূর্ণিঝড় ‘দেয়ঈ’ আঘাত হানতে পারে ভারতে

43

নড়াইল কণ্ঠ ডেস্ক: বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট গভীর নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে। ‘দেয়ঈ’ নামের এই ঘূর্ণিঝড়টি আজ শুক্রবার ভারতের দক্ষিণ ওডিশা বা উত্তর অন্ধ্র প্রদেশে আঘাত হানতে পারে। তবে ঘূর্ণিঝড়টি দুর্বল। আঘাত হানার সময় এর বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ হতে পারে ঘণ্টায় ৮০ কিলোমিটার।

এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে বাংলাদেশের উপকূলে জলোচ্ছ্বাসের কোনো আশঙ্কা নেই। তবে ভারী বর্ষণ হতে পারে ও ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ আবুল কালাম মল্লিক এসব তথ্য জানান।

আবহাওয়া অধিদপ্তর রাত ১২টার দিকে বলেছে, ঘূর্ণিঝড় দেয়ঈ আজ মধ্যরাত বা ভোরের দিকে ভারতের দক্ষিণ ওডিশা বা উত্তর অন্ধ্র প্রদেশে আঘাত হানতে পারে। গতকাল মধ্যরাতে ঘূর্ণিঝড়ের ৫৬ কিলোমিটার কেন্দ্রে বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ থেকে ৮০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছিল। ঘূর্ণিঝড়টি গতকাল রাত ১২টার দিকে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ৮১৫ কিলোমিটার, কক্সবাজার থেকে ৮০০ কিলোমিটার, মোংলা বন্দর থেকে ৬৫০ কিলোমিটার এবং পায়রা বন্দর থেকে ৬৪০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছিল।

এর আগে গভীর নিম্নচাপের প্রভাবে দেশের উপকূলীয় এলাকায় ঝোড়ো হাওয়া শুরু হয়। অনেক এলাকায় বৃষ্টিও হয়।

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে বৃহস্পতিবার রাত থেকে দেশের বেশির ভাগ এলাকায় মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাত হতে পারে। সেই সঙ্গে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত নৌযানগুলোকে নিরাপদ স্থানে অবস্থান করতে বলা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নৌযানগুলোকে সাগরে না যাওয়ার জন্য বলা হয়েছে। চট্টগ্রাম, মোংলা ও পায়রা বন্দর এবং কক্সবাজারকে ৩ নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ আবদুল মান্নান বলেন, গভীর নিম্নচাপটি বৃহস্পতিবার রাত ১০টার পর ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়। এর প্রভাবে বাংলাদেশে আগামী দুই-তিন দিন মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে।

এর আগে ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তর (আইএমডি) বলছে, গভীর নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার আশঙ্কা বেশি। যদি তা হয়, তাহলে ওই ঘূর্ণিঝড়ের নাম হবে দেয়ঈ। এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগর-বিষয়ক জাতিসংঘের সামাজিক ও অর্থনৈতিক কমিশনের (ইউএনএসকাপ) ঘূর্ণিঝড় বিশেষজ্ঞরা বঙ্গোপসাগর ও প্রশান্ত মহাসাগরে প্রতিবছর যেসব সম্ভাব্য ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টি হতে পারে, তার আগাম নাম ঠিক করে থাকেন।

২০১৮-এর সেপ্টেম্বরে বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড় হলে আগাম নাম দেওয়া হয়েছিল দেয়ঈ। মিয়ানমারের পক্ষ থেকে দেওয়া ওই নামের অর্থ ‘সুন্দরী নারী’। তবে ডিকশনারি অনুযায়ী দেয়ঈ মানে সূর্যাস্ত ও সূর্যোদয়ের মাঝখানের সময়টাকে বোঝায়।

রাত ১০ দিকে গভীর নিম্নচাপ কেন্দ্রে বাতাসের গতিবেগ ৪৮ থেকে ৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত রয়েছে, যা ঝোড়ো হাওয়ার বেগে ৬০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়ের কেন্দ্রে সাগর উত্তাল রয়েছে। তবে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম ও দক্ষিণাঞ্চলে যখন ঝড়-বৃষ্টির দাপট চলছে, তখন দেশের মধ্য ও উত্তরাঞ্চলে মৃদু দাবদাহ অব্যাহত আছে। আজও ভোলায় দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৭ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

এদিকে নিম্নচাপের প্রভাবে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে। আজ রাত থেকে ভোর পর্যন্ত রাজধানীতে ২৩ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। দেশের সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে সাতক্ষীরায় ৪১ মিলিমিটার। এ ছাড়া দেশের অন্যান্য স্থানেও কমবেশি বৃষ্টি হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী গভীর নিম্নচাপটি আজ বেলা তিনটা পর্যন্ত চট্টগ্রাম থেকে ৭৬৫ কিলোমিটার, মোংলা থেকে ৬২০ ও পায়রা থেকে ৬৩০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছিল। এর প্রভাবে বাতাসে বায়ুচাপের তারতম্য দেখা দিয়েছে। বইছে ঝোড়ো হাওয়া।

গভীর নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত না হলেও এটি বৃহস্পতিবার মধ্যরাতের মধ্যে ভারতের অন্ধ্র ও ওডিশা উপকূল অতিক্রম করতে পারে। এর প্রভাবে ভারতের ওই দুই রাজ্য ও পশ্চিমবঙ্গে ঝড়ো হাওয়া ও স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে বেশি উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস হওয়ার আশঙ্কা আছে। বাংলাদেশেও জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি উঁচু হতে পারে। সে ক্ষেত্রে উপকূলের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হতে পারে।