নির্বাচনকালীন সরকারের কোনো রূপরেখাই দাঁড় করাতে পারেনি বিএনপি

31

বাংলায় একটি প্রবাদ আছে- ‘নাচতে না জানলে উঠান বাঁকা’। অনেকটা সেই রকম অবস্থা হয়েছে বিএনপির। তারা মনে করছে নির্বাচনকালীন সরকার ব্যতীত দেশে শান্তিপূর্ণ নির্বাচন করা সম্ভব নয়। শুধু তাই নয় নির্বাচনকালীন সরকারের অধীনে নির্বাচন না হলে তারা কখনো ক্ষমতায়ও আসতে পারবেনা- এ রকম মনে করছেন বিএনপির অনেক নেতাকর্মী।
বিএনপির দৃঢ় বিশ্বাস ক্ষমতাসীন সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে নির্বাচনে কারচুপি নিশ্চিত। অর্থাৎ ক্ষমতাসীন সরকার আবার ক্ষমতায় আসাকে তারা কারচুপি হিসেবে মনে করছেন। আর এর অন্যতম কারণ হলো জনগণ বিএনপিকে প্রত্যাখ্যান করেছে। এজন্য বিএনপি নির্বাচনে ভোট পাচ্ছে না। তারা তাদের প্রতিদ্বন্দ্বী দলের থেকে ভোটের পরিমাণের দিক থেকে পিছিয়ে আছে। জনগণ তাদের পাশে দুর্নীতিবাজ চায় না। কিন্তু এই সত্য গুলো মানতে নারাজ বিএনপি।
তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের নিয়ম আমাদের দেশের সংবিধানে কোথাও উল্লেখ নেই। কিন্তু এই সংবিধান বহিৰ্ভূত কাজ করার জন্য মরিয়া হয়ে আছে বিএনপি। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে ২০১৪ সালের নির্বাচনে সারাদেশে তারা তাণ্ডব চালায়। শুরু করে জ্বালাও পোড়াও। গণপরিবহনে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মেরেছে অনেক সাধারণ মানুষ। তাদের এই অরাজনৈতিক কাজকর্ম শুধুমাত্র তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে।
বর্তমানে তাদের দাবি কিছুটা তারা পরিবর্তন করেছে। যেহেতু তত্ত্বাবধায়ক সরকার সংবিধান বহিৰ্ভূত সেহেতু তারা তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বদলে নির্বাচনকালীন একটি সরকার দাবি করছে। এমনকি তারা এটাও বলছেন, নির্বাচনকালীন সরকার ব্যতীত তারা আসন্ন নির্বচনে অংশ নিবেন না। কিন্তু যারা নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে এত কথা বলছেন তারা নিজেরাও কিছু বলতে পারছেন না সেই সরকারের কাজ কেমন হবে, কি হবে তাদের মূল লক্ষ্য। এখনও নিজেরাও সেই নির্বাচনকালীন সরকারের কোনো রূপরেখা দাঁড় করতে পারেনি বিএনপি।