বেগম খালেদার মেকআপ সামগ্রী শেষ

47

নড়াইল কণ্ঠ ডেস্ক: নারীরা স্বাভাবিকভাবেই সাঁজগোজ প্রিয় হয়ে থাকে। খালেদা জিয়াও এই দিক থেকে কম নয়। অনেক আগে থেকেই তিনি মেকআপ সাঁজগোজ পছন্দ করেন। তাও যেনতেন মেকআপ নয় তিনি পছন্দ করেন ইউরোপ, আমেরিকার নামিদামি ব্রান্ডের প্রসাধনী যা কিনা আমাদের দেশের মূল্য অনুযায়ী অনেক টাকার ব্যাপার।
বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এতিমের টাকা আত্মসাৎ করে কারাবন্দি আছেন ছয় মাসের বেশি হলো। কারাবন্দি থাকায় তার দলের অনেক অধঃপতন হচ্ছে। সবাই আছেন নিজের আখের গুছানো নিয়ে। এজন্য খালেদা মুক্তির আন্দোলন বলেও মাঠ গরম করতে পারছেন না বিএনপি। কারণ অনেকেই খালেদাকে জেলে আর তারেককে সুদূর প্রবাসে রেখে চেয়ারপারসন হওয়ার স্বপ্নে বিভোর। এজন্যই খালেদার মুক্তির আন্দোলন একের পর এক ইভেন্টের নাম করে পেছানো হচ্ছে। চেয়ারপারসনের মুক্তির আন্দোলন শুধুমাত্র মুখের কথাতেই সীমাবদ্ধ থেকে যাচ্ছে।
২০০৫ সালে প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি সফরে যান। সফর কালীন সময়ে তার ব্যাগপত্র সব ঠিক মতো গেলেও তার মেকআপ ব্যাগ তার ঢাকাতেই রয়ে গেছে। শুধুমাত্র মেকাপের জন্য তিনি তৎকালীন ভিয়েতনামের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন নি। এই বৈঠকের তারিখ এক দিন পিছানো হয় শুধুমাত্র তার মেকআপ ব্যাগের জন্য। তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোর্শেদ খান ৬২ হাজার ডলার খরচ করে খালেদার মেকআপ পারসনকে নিয়ে পুনরায় মেকআপ কিনেন। এ থেকে বুঝা যায় তিনি কতটা মেকআপ প্রিয়।
বর্তমানে কারাগারেও রয়েছে তার মেকআপ সামগ্রীর বিশাল সংগ্রহ। কিন্তু সব মেকআপ সামগ্রী তার শেষ। তার এই বিশাল মেকআপ সামগ্রী শেষের কথা তিনি ফখরুলকে জানান। বিশাল এক ফর্দও দেন ফখরুলকে। তার এই প্রসাধনী কিনার দায়িত্ব ফখরুল রিজভীকে দেন।
সেই ফর্দতে বিশ্বের নামিদামি ব্রান্ডের
প্রাইমার
কনসিলার
ফাউন্ডেশন
ট্রান্সলুসেন্ট পাউডার
ব্রোঞ্জার, আইলাইনার
মাস্কারা
আইশ্যাডো
আইব্রো পেন্সিল
আইব্রো পমেড
মেকআপ সেটিংস স্প্রে
রয়েছে লিপস্টিক ও।
এই ফর্দ দেয়ার পরও রিজভী দেরি করছেন মেকআপ প্রেমী খালেদার মেকআপ সরবরাহ করার জন্য। মেকআপ শেষ এবং মেকআপ হওয়ায় বেশ অভিমান করেছেন খালেদা জিয়া। মূলত এ জন্যই রিজভীর সাথে দেখা করতে নারাজ খালেদা।