নেপালের পথে প্রধানমন্ত্রী

25

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বে অব বেঙ্গল ইনিশিয়েটিভ ফর মাল্টিসেক্টরাল টেকনিক্যাল এন্ড ইকোনমিক কো-অপারেশনের (বিমসটেক) চতুর্থ শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে দুই দিনের সফরে আজ বৃহস্পতিবার সকালে নেপালের উদ্দেশে রওনা হয়েছেন। কাঠমান্ডুর হোটেল সোয়ালটি ক্রাউন প্লাজায় আজ বিকেলে সাতটি দেশের নেতাদের অংশগ্রহণে এই শীর্ষ সম্মেলন শুরু হবে।
শীর্ষ সম্মেলনে অংশ নেওয়ার পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন। বর্তমান পরিস্থিতিতে এই বৈঠককে গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনা করা হচ্ছে। এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা এবং ভুটানের অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের প্রধান উপদেষ্টা দাশো সেরিং ওয়াংচুকের সঙ্গেও পৃথক বৈঠক করবেন। বিমসটেকের সদস্য দেশ মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চি এ বৈঠকে যোগ দিচ্ছেন না।
প্রধানমন্ত্রীর বিমসটেক শীর্ষ সম্মেলনে যোগদান উপলক্ষে গতকাল বুধবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জানান, বৃহস্পতিবার সকালে কাঠমান্ডু রওনা হবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কাঠমান্ডুতে বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাবেন নেপালের উপপ্রধানমন্ত্রী ঈশ্বর পোখারেল এবং নেপালে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মাশরাফি বিনতে শামস।
প্রতিমন্ত্রী জানান, সম্মেলন উদ্বোধনের পর নেপালের প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের পরপরই বক্তব্য দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সম্মেলনে অংশ নেওয়ার পাশাপাশি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পৃথক বৈঠক হবে বলে আশা করা হচ্ছে। বৈঠকে দুই দেশের দ্বিপক্ষীয় বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হবে।
তিনি জানান, সফরকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেপালের রাষ্ট্রপতির বাসভবন শীতল নিবাসে রাষ্ট্রপতি বিদ্যা দেবী ভান্ডারির সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন এবং তার দেওয়া মধ্যাহ্নভোজে অংশ নেবেন। সফরের প্রথম দিনেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেপালের রাজপ্রাসাদে নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মার সঙ্গে বৈঠক করবেন এবং তার দেওয়া নৈশভোজে অংশ নেবেন। এখানেই শেখ হাসিনার সঙ্গে ভুটানের প্রধান উপদেষ্টার পৃথক বৈঠক হবে।