বিশ্বকাপের ট্রফি ঘুরবে বাংলাদেশের চার বিভাগে

55

সময় মাত্র আর এক বছরও নেই। ২০১৯ সালের ৩০ মে ইংল্যান্ডে পর্দা উঠবে ক্রিকেট বিশ্বকাপের। তাই এখন থেকেই প্রচারণায় বেশ তৎপর আইসিসি। ঘোষণা করেছে ওয়ানডে বিশ্বকাপের ট্রফির বিশ্বভ্রমণের সময়সূচি। তাতে অনুমেয়ভাবেই সুসংবাদ পেল বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীরা। কেননা, এবারো ট্রফির বিশ্বভ্রমণের সূচিতে রয়েছে বাংলাদেশ। ঘুরে বেড়াবে দেশের চার বিভাগে।
আইসিসির বিশ্বকাপ ট্রফির বিশ্বভ্রমণ শুরু হবে ২৭ আগস্ট। ওইদিন থেকে ঠিক ১০০ দিন বিশ্বজুড়ে থাকা ক্রিকেট ভক্তদের দেখা দেবে ওই সোনার হরিণ। যা দেখার সৌভাগ্য হবে ২১ দেশের ৬০ শহরের ভক্তের। শুরুতেই ট্রফির দেখা মিলবে ওমানের জনসাধারণের। কারণ, বিশ্বকাপ শিরোপার প্রথম গন্তব্য স্থান ওমানের রাজধানী মাসকট। সেখান থেকে টানা নয় মাস ঘুরে বেড়াবে এটি।
ট্রফির এই ভ্রমণ শুরু হবে দুবাইয়ে অবস্থিত আইসিসির প্রধান কার্যালয় থেকে। পাঁচটি উপমহাদেশের ২১টি দেশে ৬০ শহরে ঘুরবে বিশ্বকাপের ট্রফিটি। শুধু ক্রিকেট খেলুড়ে দেশেই নয়, ফুটবলের জনপ্রিয় দেশ জার্মানি, বেলজিয়াম আর ফ্রান্সও রয়েছে বিশ্ব ভ্রমণের তালিকাতে। তবে বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করলেও আফগানিস্তানে যাচ্ছে না সোনালি ট্রফিটি।
সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে শুরু করে বিশ্বকাপের ট্রফিটি একে একে ঘুরবে ওমান, যুক্তরাষ্ট্র, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান, বাংলাদেশ, নেপাল, ভারত, নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, কেনিয়া, রুয়ান্ডা, নাইজেরিয়া, ফ্রান্স, বেলজিয়াম, নেদারল্যান্ডস এবং জার্মানির বিভিন্ন শহরে। সবশেষে মোট ১০০ দিনের সফল সমাপ্ত করে ২০১৯ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি এটা পৌঁছবে আয়োজক দেশ ইংল্যান্ডে।
বিশ্বকাপ ট্রফির বাংলাদেশ ভ্রমণে আসবে এক সপ্তাহের জন্য। ১৭ অক্টোবর প্রথমেই এটি পৌঁছাবে রাজধানী ঢাকায়। থাকবে ১৯ তারিখ পর্যন্ত (তিনদিন)। খুলনায় কাটাবে এক দিন (২০ অক্টোবর)। ট্রফির পরবর্তী গন্তব্য স্থান সিলেট। এখানেও থাকবে এক দিন (২১ অক্টোবর)। এরপর সবশেষ পাড়ি জমাবে বন্দর নগরী চট্টগ্রামে। সেখানে ২২ ও ২৩ অক্টোবর- মোট দু’দিন কাটিয়ে বাংলাদেশ ভ্রমণের ইতি টানবে সোনালি ট্রফিটি।
বিশ্বকাপ ট্রফির বিশ্ব ভ্রমণ প্রসঙ্গে আইসিসির প্রধান কার্যনির্বাহী ডেভিড রিচার্ডসন জানান, ‘ট্রফির ভ্রমণ বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা ভক্তদের আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপের অংশ হওয়ার জন্য দারুণ একটি সুযোগ। আগের চেয়েও আরো বেশি দেশ এবং শহরের মানুষকে এই সুযোগ দিয়ে তাদেরকে চমৎকার একটি স্পোর্টিং ইভেন্টের সাক্ষী বানানোই আমদের লক্ষ্য।’
বিশ্বকাপ ট্রফির বিশ্বভ্রমণে সহযোগিতা করছে নিশান অটোমোবাইল কোম্পানি। রিচার্ডসনের মতে, নিশানের এগিয়ে আসার সুবাদে আরো উন্মাদনা বাড়বে বিশ্বকাপ ঘিরে, ‘দারুণ একটি ভ্রমণে নিশান আমাদের পার্টনার হওয়ায় তাদের ধন্যবাদ। আমার বিশ্বাস, উচ্চাবিলাসী এই জার্নি আগামী গ্রীষ্মে ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলসে পর্দা ওঠা বিশ্বকাপের উন্মাদনা আরো বাড়াবে।’
নিশানের গাড়িতে ভ্রমণে বের হবে বিশ্বকাপের ট্রফি- এ আনন্দে ভাসছেন কোম্পানিটির মার্কেটিংয়ের প্রধান রোয়েল ডি ভ্রাইসও, ‘নিশানের গাড়িতে চড়ে বেড়াবে বিশ্বকাপের ট্রফি বিশ্বজুড়ে ক্রিকেট ভক্তদের সামনে। সত্যিই অবিশ্বাস্য এক সুযোগ এটি।’