নড়াইল সদর হাসপাতালে স্কুলছাত্রীর নগ্নছবি ধারণের অভিযোগ, গ্রেফতার ২

48

নড়াইলে অষ্টম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীর নগ্ন ছবি ধারণের অভিযোগে সাত জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। পুলিশ দুই জনকে গ্রেফতার করেছে। শনিবার (১৮ আগস্ট) দুপুরে মামলাটি দায়ের করেন ওই স্কুলছাত্রীর বাবা।
শুক্রবার (১৭ আগস্ট) সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন এক আত্মীয়কে দেখতে এসে বিকাল ৪টার দিকে ওই স্কুলশিক্ষার্থী টয়লেটে গেলে তার নগ্ন ছবি ধারণের ঘটনা ঘটে।
মামলায় অভিযুক্তরা হলেন- সদর হাসপাতাল এলাকার বেসরকারি অ্যাম্বুলেন্স চালক শহরের ভওয়াখালীর সেকেন্দার আলী আকাশ (২২), হাসপাতালের সুইপার হরেনের ছেলে বাসু (৩০), সদর উপজেলার আউড়িয়া ইউনিয়নের রামচন্দ্রপুর গ্রামের ইয়ামিন সিকদার (২১), হোসেনপুর গ্রামের আজিজুর রহমান (২২), ভওয়াখালীর সাব্বির হোসেন (২৫), হুসাইন (১৯) ও ভওয়াখালীর দেবদারতলার হোটেল কর্মচারী ইনামুল (১৯)।
এরমধ্যে ইয়ামিন সিকদার ও আজিজুর রহমানকে শনিবার গ্রেফতার করা হয়। মামলার বিবরণে জানা গেছে, অসুস্থ এক আত্মীয়কে দেখতে এসে শুক্রবার হাসপাতালে অবস্থান করছিল ওইা স্কুলছাত্রী। বিকালে হাসপাতালের দ্বিতীয় তলার উত্তর পাশের টয়লেটে যায় মেয়েটি। এ সময় ইয়ামিন সিকদার, বাসু ও আকাশ টয়লেটের সামনে ঘোরাফেরা করছিল। পরে টয়লেট থেকে বের হওয়ার জন্য মেয়েটি দরজা খোলার সঙ্গে সঙ্গে অভিযুক্ত তিন জন তাকে বাধা দেয়। মেয়েটিকে ধাক্কা দিয়ে টয়লেটে ভেতরে নিয়ে আটকে দরজা বন্ধ করে দেয় তারা। তাকে ভয়ভীতি দেখিয়ে মোবাইলে নগ্ন ছবি তুলে মেয়েটির কাছে টাকা দাবি করে। টাকা না দিলে নগ্ন ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেয় তারা। এ কাজে অন্যরা সহযোগিতা করে। এক পর্যায়ে টয়লেটের কাছে লোকজন এগিয়ে গেলে তারা মেয়েটিকে নগ্ন অবস্থায় ফেলে পালিয়ে যায়।
নড়াইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘এজাহারভুক্ত দুই আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।বাকি আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।’