জামায়াতকে মাইনাসের ‘চূড়ান্ত’ সিদ্ধান্ত বিএনপি’র

0
29
Tuli-Art Buy Best Hosting In chif Rate In Bd

২০ দলীয় জোট থেকে শরিক দল জামায়াতে ইসলামীকে বাদ দেয়ার জন্য চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দিয়েছে বিএনপির তৃণমূল নেতারা। নেতারা এর পেছনে বেশকিছু যুক্তিও তুলে ধরেছেন বলে জানা গেছে। সূত্র বলছে, যুক্তিগুলো বিবেচনায় জামায়াতে ইসলামীকে ২০ দল থেকে বাদ দেয়া এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র।
৩ আগস্ট বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে তৃণমূল বিএনপি নেতাদের সাথে জামায়াতে ইসলামীকে জোট থেকে বাদ দেওয়া নিয়ে আলোচনায় এমন সিদ্ধান্ত দিয়েছে তারা। দুদিনব্যাপী তৃণমূল বিএনপির সঙ্গে দলটির হাইকমান্ড বৈঠকে বসে। ৩ আগস্ট সকাল সাড়ে ৯টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের বিএনপির ১৯টি সাংগঠনিক জেলার সঙ্গে বৈঠক করে দলের হাইকমান্ড। এই সেশনে ২০ দলীয় জোট থেকে জামায়াতকে বাদ দিতে তৃণমূল নেতারা পরামর্শ দেন।
বৈঠক সূত্র জানায়, বিএনপির রাজশাহী বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুও আগামী নির্বাচনের আগে দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ডাক দেওয়া ‘জাতীয় ঐক্য’ করতে জোট থেকে জামায়তকে বাদ দেওয়া দরকার বলে মত দিয়েছেন।
রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর এ বক্তব্যকে সমর্থন করেন রংপুর বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল হাবিব দুলু। তিনি বলেন, জাতীয় ঐক্যের প্রয়োজনে এখন জোট থেকে জামায়াতকে বাদ দিতে হবে।
২০ দলীয় জোট থেকে জামায়াতকে বাদ দিতে জেলার নেতারাও এই দুই সাংগঠনিক সম্পাদকের বক্তব্যকে সমর্থন দেন বলে জানা যায়।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বৈঠকে উপস্থিত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির স্থায়ী কমিটি এক সদস্য বলেন, তৃণমূল নেতারা জামায়াতকে বাদ দিতে পরামর্শ দিয়েছেন। বিগত সিটি করপোরেশন নির্বাচন ও জামায়াতের অসহযোগমূলক মনোভাবে আমরাও এর যুক্তিকতা খুঁজে পাই। তবে জমায়াতকে বাদ দেয়া নিয়ে স্পষ্ট করে কিছু না বললেও একে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত বলা অমূলক হবে না। কেননা, তাদের ডিসকার্ড করা এখন তৃণমূলেরও দাবি। অতি-সম্প্রতি স্থায়ী কমিটির নেতাদের সঙ্গে বসে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here