শহিদুল আলমকে নির্যাতনের অভিযোগ: আসকের উদ্বেগ

42

খ্যাতিমান আলোকচিত্রী ও মানবাধিকারকর্মী শহিদুল আলমকে পুলিশি হেফাজতে নির্যাতনের অভিযোগে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বেসরকারি সংস্থা আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক)।
৭ আগস্ট, মঙ্গলবার সংস্থাটির দেওয়া এক বিবৃতিতে এ উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়।
বিবৃতিতে বলা হয়, ‘বাংলাদেশ সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৩৫ (৫) দেশের নাগরিকদের নির্যাতন বা নিষ্ঠুর, অবমাননাকর ও অমানবিক আচরণ থেকে সুরক্ষা দেয়। এ ছাড়া বাংলাদেশ নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকার সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক সনদ এবং নির্যাতনবিরোধী আন্তর্জাতিক সনদে স্বাক্ষর করেছে।’
বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, আলোকচিত্রী শহিদুল আলমকে রবিবার রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকার নিজ ফ্ল্যাট থেকে সাদা পোশাকে বেশ কিছু লোক তুলে নিয়ে যায়। তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এ ক্ষেত্রে তাদের সংশ্লিষ্টতা অস্বীকার করে। কিন্তু আটকের প্রায় ২১ ঘণ্টা পর সোমবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় মিথ্যা তথ্য প্রচার ও গুজব ছড়ানোর অভিযোগে আইসিটি আইনের বহুল সমালোচিত ৫৭ ধারায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।
একই দিন বিকালে তাকে ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। আদালত তার সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে। শহিদুল আলম আদালতে অভিযোগ করেছেন যে, তাকে শারীরিক নির্যাতন করা হয়েছে।’
আসকের বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘পরোয়ানা ছাড়া গ্রেফতার ও রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ সংক্রান্ত ফৌজদারি কার্যবিধির ৫৪ ও ১৬৭ ধারার সংশোধনের নির্দেশনা দিয়ে উচ্চ আদালত ২০১৬ সালে যে আদেশ দিয়েছে, তার সাথে শহিদুল আলমকে আটক ও নির্যাতনের ঘটনা সাংঘর্ষিক।’ তথ্য : ইউএনবি/প্রিয়.কম