নড়াইলে বঙ্গবন্ধু’র শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালনে ব্যাপক কর্মসুচি গ্রহণ

41

নড়াইল কণ্ঠ : হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর ৪৩তম শাহাদাত বার্ষিকী যথাযথ মর্যাদায় পালন ও জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত সোমবার (৩০ জুলাই) জেলা প্রশাসকের সন্মেলন কক্ষে নড়াইলের জেলা প্রশাসক মো: এমদাদুল হক চৌধুরীর সভাপতিত্বে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
দিবসটি পালনে নড়াইলে সরকারিভাবে বিভিন্ন কর্মসুচি গ্রহণ করা হয়। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, জেলার সকল উপজেলা, ইউনিয়ন পর্যায় জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ, কালো পতাকা উত্তোলন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর মুরাল এ পুষ্পস্তবক অর্পণ, র‌্যালি, সকল ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে তাঁর আত্মার শান্তি কামনা করে দোয়া প্রার্থনা, আলোচনা সভা, চিত্রাংকন ও রচনা প্রতিযোগিতা, জেলা তথ্য অফিসের উদ্যোগে জেলার জনবহুল প্রত্যান্ত এলাকায় বঙ্গবন্ধুর জীবনীর উপর চলচিত্র প্রদর্শন করা ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর জীবনী নিয়ে আলোচনাসহ নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে সরকারিভাবে দিবসটি পালন করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
সভায় জেলা প্রশাসক মো: এমদাদুল হক চৌধূরী আরো জানান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর ৪৩তম শাহাদাত বার্ষিকী যথাযথ মর্যাদায় পালন ও জাতীয় শোক দিবস পালনে সকল সরকারি প্রতিষ্ঠানের প্রধানগণের উপস্থিত নিশ্চিত করতে হবে এবং যারা আসবেন তাদের নাম তালিকা করে কেন্দ্রীয় সরকারের নিকট প্রেরণ করা হবে।
এছাড়া সকল সরকারি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এ দিবসে বঙ্গবন্ধুর জীবনী নিয়ে আলোচনা করা, জাতীয় সংগীত ও জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ ও কালো পতাকা উত্তোলন নিশ্চিত করে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের প্রতিবেদন দিতে হবে।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সোহরাব হোসেন বিশ্বাস, ডিডিএলজি মো: মনিরুজ্জামান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) কামরুল আরিফ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) কাজী মাহাবুবুর রশিদ, সদরের ইউএনও সালমা সেলিম, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট গোলাম নবী,জিপি অ্যাডভোকেট অচিন চক্রবর্তী, বীরমুক্তিযোদ্ধা সাইফুর রহমান হিলু,জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস, সাধারণ সম্পাদক মো: নিজামউদ্দিন খান নিলু, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি মলয় কুমার কুন্ডুসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ,সকল সরকারি-বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি দপ্তরের প্রধানগণ।