গণমাধ্যমে ‘সাইবার অপরাধ বিট’ চালুর আহ্বান

0
25
Tuli-Art Buy Best Hosting In chif Rate In Bd

নড়াইল কণ্ঠ ডেস্ক: ইন্টারনেটসহ প্রযুক্তির নানা সুবিধাকে অপব্যবহারের মাধ্যমে অপরাধের হাতিয়ার করা হচ্ছে। ফলে ক্রমেই বাড়ছে সাইবার অপরাধের প্রবণতা। প্রযুক্তির উন্নয়নে পৃথিবী জুড়ে প্রচলিত অপরাধের ধরন পাল্টে রূপ নিচ্ছে সাইবার অপরাধে। বাংলাদেশও এর বাইরে নয়। তাই দেশের গণমাধ্যমগুলোতে ‘সাইবার অপরাধ’ বিষয়ক সাধারণ সংবাদ ও প্রতিবেদন গুরুত্বসহ প্রকাশ ও প্রচারে ‘বিট’ চালু করার আহ্বান জানিয়েছেন গণমাধ্যমকর্মীরা।
সোমবার ২ জুলাই দুপুরে রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরে ‘সাইবার অপরাধ অনুসন্ধান ও সচেতনতা’ বিষয়ক সাংবাদিকদের এক প্রশিক্ষণ কর্মশালায় এসব কথা বলেন বিভিন্ন গণমাধ্যমে কর্মরত সংবাদকর্মীরা। প্রযুক্তি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান সাইবার প্যারাডাইজের সহায়তায় কর্মশালার আয়োজন করে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সাইবার ক্রাইম অ্যাওয়ারনেস (সিসিএ) ফাউন্ডেশন। ।
সাইবার অপরাধের উৎস অনুসন্ধান বিষয়ে আলোচনা করেন সাইবার নিরাপত্তা প্রশিক্ষক ও গবেষক মো. মেহেদী হাসান। কর্মশালায় অংশ নেন দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমের অর্ধশতাধিক সংবাদকর্মী।
পরে অংশগ্রহকারীদের মধ্য থেকে বক্তব্য রাখেন ডেইলি বাংলাদেশের বার্তা সম্পাদক কাজী লুৎফুল কবীর, চ্যানেল টুয়েন্টি ফোরের সিনিয়র ক্রাইম রিপোর্টার রাশেদ নিজাম ও দৈনিক শেয়ারবিচ কড়চার স্টাফ রিপোর্টার শেখ আবু তালেব।
কাজী লুৎফুল কবীর বলেন, ডিজিটাল ডিভাইস ব্যবহারে মূলত ব্যক্তি পর্যায়ে অনেক বেশি জ্ঞান ও সচেতনতা প্রয়োজন। বিশেষ করে আধুনিক সমাজ ব্যবস্থায় যত ধরনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এসেছে তা ব্যবহারে পারিবারিক ও ব্যক্তিগতভাবে আরো সর্তক থাকতে হবে। চিন্তা করতে হবে প্রকৃতির সঙ্গে বিরূপ আচরণ করলে, ক্ষতিকর প্রতি উত্তর আসবেই। তাই ধর্মীয় হোক আর প্রকৃত শিক্ষা সচেতনতাই হোক পরিবার থেকে আসতে হবে উদ্যোগ। বিভিন্ন ধরনের ডিভাইসসহ ডিজিটাল টেকনোলজি ব্যবহারে আগে জানতে হবে, পরে ব্যবহারে উৎসাহিত হতে হবে বলে মনে করেন বলেও জানান লুৎফুল কবীর। দেশের গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ‘মিলিটারি ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি’ (এমআইএসটি) সাইবার অপরাধ বিষয়ে ২১ জুলাই কর্মশালার আয়োজন করেছে বলে জানান তিনি। সেই কর্মশালায় অংশ নেয়ার আহ্বানও জানান ডেইলি বাংলাদেশের বার্তা সম্পাদক।
পরে অংশগ্রহণকারীদের দেয়া হয় দিনব্যাপি কর্মশালার সনদ। এতে অংশ নেন সংগঠনের আহ্বায়ক কাজী মুস্তাফিজ ও সদস্য সচিব আব্দুল্লাহ হাসান।
কাজী মুস্তাফিজ বলেন, বিশ্বে প্রথম কোনো দেশ হিসেবে নিজেদের নামের আগে ‘ডিজিটাল’ শব্দ যুক্ত করেছে বাংলাদেশ। ফলে দেশে প্রত্যন্ত অঞ্চলে ইন্টারনেটসহ প্রযুক্তির নানা সুবিধা এখন আমাদের হাতের নাগালে। কিন্তু এসব সেবা গ্রহণে নিরাপত্তার বিষয়টিও গুরুত্বপূর্ণ। আর এজন্য সচেতনতার বিকল্প নেই। আর সচেতনতায় সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখেন গণমাধ্যমকর্মীরা। এজন্য তাদের পেশাগত মানোন্নয়নে সংশ্লিষ্টদের উদ্যোগ নেয়া উচিত। সব গণমাধ্যমে ‘সাইবার অপরাধ বিট’ চালু করতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।
সাইবার সচেতনতায় নিজ নিজ অবস্থান থেকে ভূমিকা রাখতে গণমাধ্যমকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান আব্দুল্লাহ হাসান। পেশাগত মানোন্নয়নে এর আগেও ঢাকায় শতাধিক সাংবাদিককে সাইবার অপরাধ অনুসন্ধান ও সচেতনতা বিষয়ক প্রশিক্ষণ দেয় সিসিএ ফাউন্ডেশন। সোমবারের ছিল দ্বিতীয় আয়োজন। আগামীতেও আরো উদ্যোগ নেয়ার জন্য গণমাধ্যমকর্মীদের সহযোগিতা প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন তিনি।
নিরাপদ ইন্টারনেট ব্যবহারে জনসচেতনতায় ২০১৫ থেকে দেশে স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে সিসিএ ফাউন্ডেশন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here