নড়াইলে স্বাস্থ্যসেবার মানোন্নয়নে সিভিল সোসাইটির সাথে মতবিনিময়

0
40
Tuli-Art Buy Best Hosting In chif Rate In Bd

নড়াইল কণ্ঠ : “ডাক্তার সাহেবরা নি:সন্দে মেধাবী। আমি তাদের স্যালুট করি। কিন্তু শিক্ষিত হওয়া এবং জ্ঞানী হওয়া দু’টাই ভিন্ন জিনিস। একজন লোক শিক্ষত হতে পারেন পড়ালেখা করে, কিন্তু রিয়েল জ্ঞান/উজডম সেটা কিন্ত সবার মধ্যে নাও থাকতে পারে। একজন পিএইচডি হোল্ডার হতে পারেন, নবেল লরী হতে পারেন; কিন্তু উনি জ্ঞানী নাও হতে পারেন। প্রকৃত জ্ঞানী মানুষই মানুষের সেবা করবেন। উনি জানেন এর চেয়ে মহৎ কাজ আর নেই”। ডাক্তাদের আন্তরিকতার বিষয়টি এসপি সাহেব বলেছেন। ডাক্তার সাহেবদের ভেতর থেকে যতক্ষন পর্যন্ত বুঝে আসবে না যে, সেবা দেয়াটা মহৎ কাজ, ততক্ষণ পর্যন্ত তাদের (চিকিৎসক) আন্তরিকতা আসবে না। সুতরাং চিকিৎসকদের মোটিভেশন জরুরী। এ কাজটি সংশ্লিষ্টরাই প্রতিনিয়ত চেষ্টা করেন। আমি মনে করি আমাদের এভাবেই তৈরী হয়ে মানুষের সেবায় নিয়োজিত থাকতে হবে। এতে করে আমি নিজে ভাল থাকবো, পরিবার, সমাজ, রাষ্ট্রের সকলেই ভাল থাকা যায়। এর কোনটাই টাকা দিয়ে কেনা যায় না। শুধু নিজের ভেতর থেকে উপলদ্ধি দরকার। তাতে দেখবেন নিজে নিরন্তন শান্তি অনুভব করছেন”।

বুধবার (৩০ মে) সকাল সাড়ে ১০টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে নড়াইল জেলার সার্বিক স্বাস্থ্য সেবার মান চরম নি¤œপর্যায়ে যাওয়ায় এবং এলাকার গণমানুষের আন্দোলনের দাবির প্রেক্ষিতে ডিসি’র ডাকা স্বাস্থ্য বিভাগের সাথে মতবিনিময়ে জেলা প্রশাসক মো: এমদাদুল হক চৌধুরী এসব কথা বলেছেন।

তিনি আরো বলেন, সিভিল সার্জন যেহেতু প্রাইভেট ক্লিনিক মালিকেদের লাইসেন্স নবায়ন এবং যে সকল ক্লিনিক মালিকেদের এখনও কোন লাইসেন্স নেই অথচ ক্লিনিক্যাল ব্যবসা করে যাচ্ছেন উভয় ৩০ জুনের মধ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রাইভেট ক্লিনিক বিধি ও শর্ত পুরনপূর্বক নতুন লাইসেন্স করে নিবেন। জুলাই হতে আমি দেখবো। বর্তমান সরকার যতটুকু রিসোর্স এ জেলার স্বাস্থ্যসেবার জন্য বরাদ্দ দিয়েছে তার শতভাগ ব্যবহার নিশ্চিত করার দায়িত্ব স্বাস্থ্য বিভাগের। এলাকার জনগণ আশা করি আন্তরিকভাবে সহযোগিতা করবেন। তিনি আরো বলেন, হাসপাতালের সেবার ধরণ, কক্ষ, সময়, দিনক্ষণ উল্লেখ করে সাধারণের জন্য উন্মুক্ত করার ব্যবস্থা করবেন কৃর্তপক্ষ। সদর হসপিটালে দালালমুক্ত রাখতে এবং প্রদর্শিত সিটিজেন চাটার্ট অনুযায়ি কাজ হচ্ছে কি না সেটা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে জেলা প্রশাসক মো: এমদাদুল হক চৌধুরী ও পুলিশ সুপার মোহাম্মাদ জসিম উদ্দিন পিপিএম সিসি ক্যামেরার ব্যবস্থা করবেন।

অনুষ্ঠানে াণ্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম, সিভিল সার্জন ডাঃ আসাদ-উ-জামান মুন্সী, নড়াইল সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ জসিম উদ্দিন হাওলাদার, বিএমএ ’এর নড়াইল জেলার সভাপতি ডা: মনোয়ার হোসেন তাপস, আরএমও মশিউর রহমান বাবু, জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক কাজী হাফিজুর রহমান, সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সালমা রহমান কবিতা, অ্যাডভোকেট আলমগীর সিদ্দিকী, বিটিভি’র প্রতিনিধি এনামুল কবীর টুটু, জেলা স্বাস্থ্য সেবা সুরক্ষা সংগ্রাম কমিটির আহ্বায়ক আঞ্জুমান আরা বেগম, যুগ্ম-আহ্বায়ক হাফিজ খান মিলন, সমন্বয়ক মেশকাতুল ওয়ায়েজিন লিটু, খন্দকার শাহেদ আলী শান্ত, হুমায়ুন কবীর রিন্টু, জেলা মহিলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক সুইটি বিশ্বাস প্রমূখ।

সদর হাসপাতালসহ জেলার সকল হেলথ কমপ্লেক্স, কমিউনিটি ক্লিনিকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসক ও জনবল নিয়োগ, প্রয়োজনীয় ঔষধ সরবরাহসহ জেলার গণমানুষের স্বাস্থ্য সেবার জন্য কি কি করণীয় সে বিষয়ে সভায় বিস্তারিত আলোচনা করা হয়।

এসময় জেলা স্বাস্থ্য সেবা সুরক্ষা সংগ্রাম কমিটির সদস্যগণ, সরকারি কর্মকর্তা, সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here