নড়াইলে মাদক প্রতিরোধে “লাঠিয়াল বাহিনী”

0
39
Tuli-Art Buy Best Hosting In chif Rate In Bd

নড়াইল কণ্ঠ নিজস্ব প্রতিবেদক : মাদক বিক্রেতা ও মাদকসেবিদের বিরুদ্ধে নড়াইলের কালিয়া উপজেলার চাচুড়ী-পুরুলিয়া বাজারে গড়ে উঠেছে মাদক প্রতিরোধে “লাঠিয়াল বাহিনী”। চাচুড়ী-পুরুলিয়া গ্রামসহ আশপাশের এলাকায় মাদকব্যবসায়ী ও সেবীদের বেপরোয়া কর্মকান্ডে অতিষ্ট হয়ে রুখে দাড়িয়েছে ওই এলাকার কিছু যুবক। স্থানীয় ইউপি সদস্য কোবাদ হোসনের নেতৃত্বে প্রায় ২০ জনের একটি দল বিকাল ৪টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত ওই এলাকায় সার্বক্ষণিক পাহারা দিচ্ছে। মাদক বিক্রেতা ও সেবীদের ধরে পুলিশের কাছে সোপর্দ করছে। গত এক সপ্তাহে ইয়াবা ও গাঁজা সহ ১১ জনকে আটক করে শান্ত মোল্যা (ইয়াবা বিক্রেতা), সাইফুল শেখ, তাজুল ইসলাম, ইকরামুল শেখ, হামিম মোল্যা ও এসকেন হোসেন এই ৬ জনকে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে। বাকিদের সতর্ক করে ছেড়ে দিয়েছে। ঘটনাটি এলাকায় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। ‘লাঠিয়াল বাহিনী’র ভয়ে মাদক ব্যবসায়ী আর সেবীদের নির্ধারিত আখড়া ভেঙ্গে পড়েছে।
লাঠিয়াল বাহিনীর ২০ জনের দলটি চারটি ভাগে পাহারার ব্যাবস্থা করছে। ৪টি দলের নেতৃত্বে আছেন নয়ন সরদার, সুখ মিয়া শেখ, সেলিম সরদার ও ফিরোজ আলম। দলগুলি প্রতিদিন বিকাল ৪টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত পুরুলিয়া স্কুল মাঠ ও পিছনের বাগান, মনোরঞ্জন কাপুড়িয়া কলেজ মাঠ ও কলেজ মোড়, সিনথিয়া কিন্ডার গার্টেনের সামনে,শ্মশানঘাট, পুরুলিয়া মোড় এলাকায় পাহারা দিচ্ছে।
এলাকার ব্যবাসায়ী নজরুল ইসলাম খান বলেন, লাঠিয়াল বাহিনীর কারনে গতকয়েক দিন ধরে মাদকসেবী ও বিক্রেতাদের এলাকায় দেখা যাচ্ছে না। এটা একটা ভালো উদ্যোগ। তাদের এই চেষ্টা যেন সফল হয় সে ব্যাপারে সহযোগীতা করব।
জানাগেছে,নড়াইল-কালিয়ার মধ্যবর্তী এবং যশোরের নোয়াপাড়া বাজারের সাথে সড়ক ব্যবস্থা ভাল থাকায় মাদক ব্যবসায়ীদের ট্রানজিট রুট চাচুড়ী বাজার ও পুরুলিয়া গ্রাম। এলাকার চাচুড়ী বাজার বাবুর মাঠ, চাচুড়ী ও পুরুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চত্বর, পুরুলিয়া স্কুল মাঠ ও পিছনের বাগান, মনোরঞ্জন কাপুড়িয়া কলেজ মাঠ ও কলেজ মোড়, সিনথিয়া কিন্ডার গার্টেনের সামনে, শ্বশানঘাট, পুরুলিয়া মোড়, রঘুনাথপুর ব্রীজ, চাচুড়ী বাজারের পশ্চিম পাশে মকসেদ মাস্টারের বাগান, পুরুলিয়ার পোড়া মন্দির সহ এলাকার শতাধিক মাছের ঘেরে বিকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলে মাদক সেবন ও কেনাবেচা। এলাকার মাদকের এজেন্ট এর বিকাশ নম্বরে টাকা লেনদেনের পর নিদির্ষ্ট স্থানে পৌছে দেয়া হচ্ছে এসব মাদকদ্রব্য।
এলাকাবাসীর অভিযোগ,মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত চন্দ্রপুর গ্রামের শিমুল শেখ, বিপ্লব মোল্যা, পুরুলিয়া গ্রামের বখতিয়ার সরদার, ছামি মিনা, শহিদুল মিনা, রাকিব খান, সজিব খান, পিটুল শেখ সহ আরো অনেকে দীর্ঘদিন ধরে গাজা ও ইয়াবা বিক্রি করে আসছে। এদের সবার বিরুদ্ধে একাধিক মাদকের মামলা আছে। পুলিশের কাছে ধরা পড়ে কয়েকবার জেল খেটে তারা আবারো ইয়াবা বিক্রি শুরু করেছে।
লাঠিয়াল দলের নেতৃত্বে থাকা ইউপি সদস্য কোবাদ হোসেন জানান, এলাকায় ইয়াবা এতো বিস্তার করেছে যে,স্কুেলর ছেলে মেয়েরা মাদক সেবন ও বেচাকেনায় জড়িয়ে পড়েছে,টাকা নাপেয়ে তারা বাব-মায়ের উপর আক্রমন করছে,চুরি ছিনতাই এ জড়াচ্ছে। নিজেদের ছেলে মেয়েদের এই ভয়াল দশা থেকে বাচাতে আমরা লাঠিয়াল বাহিনী তৈরী করেছি।
কালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শমসের আলী বলেন, মাদক ব্যবসায়ীরা নানা রকম কৌশল অবলম্বন করায় প্রকৃত অপরাধীদের আটক করতে হিমশিম খাচ্ছে পুলিশ। চাচুড়ী-পুরুলিয়ার লাঠিয়াল বাহিনীর প্রচেষ্টায় অচিরেই ওই এলাকা মাদকমুক্ত হবে। মাদকের সাথে জড়িতদের গ্রেফতার পুর্বক আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here