নড়াইলের দিঘলিয়া ইউপি উপ-নির্বাচনে আ’লীগের প্রার্থী নির্বাচিত

63

নড়াইল কণ্ঠ : নড়াইলের লোহাগড়ায় নিহত চেয়ারম্যান লতিফুর রহমানের স্ত্রী নীনা ইয়াছমিন বিজয়ী হয়েছেন।মঙ্গলবার (১৫ মে) উপজেলার দিঘলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান পদে এ উপ-নির্বাচন হয়।
নীনা ইয়াছমিন দিঘলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ উপ-নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ছিলেন। তিনি ৫হাজার ৫৩৫ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাচনে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী লতিফুর হত্যা মামলার আসামি ও দিঘলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি স্বতন্ত্র প্রার্থী স ম ওহিদুর রহমান আনারস প্রতিকে ৩ হাজার ১৩৪ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী জাতীয় শ্রমিক লীগ নেতা সাহিদুল আলম চশমা প্রতিকে ১ হাজার ৮০২ ভোট এবং ধানরে শীষ প্রতিকে এস এম মাকছুদুল হক ৩২৮ ভোট পেয়েছেন।
মঙ্গলবার (১৫ মে) নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার দিঘলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) উপ-নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। বিরতিহীনভাবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত সুষ্ঠু-সুন্দরভাবে ভোট গ্রহণ হয়। পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা ছিল উল্লেখ্যযোগ্য। কোথায়ও কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।
নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী নীনা ইয়াছমিন, বিএনপি প্রার্থী এস এম মাকছুদুল হক (ধানের শীষ প্রতীক), স্বতন্ত্র প্রার্থী স ম ওহিদুর রহমান (আনারস প্রতীক) ও অপর স্বতন্ত্র প্রার্থী জাতীয় শ্রমিক লীগ নেতা সাহিদুল আলম (চশমা প্রতীক) প্রতিদ্বন্দিতা করেন।
দিঘলিয়া ইউনিয়নে ভোটার সংখ্যা ১৭ হাজার ৯৪৭। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৮ হাজার ৯৮৬ এবং নারী ভোটার ৮ হাজার ৯৬১ জন।
উল্লেখ্য, আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নীনা ইয়াছমিন দিঘলিয়া ইউপির নিহত চেয়ারম্যান লতিফুর রহমান পলাশের স্ত্রী। গত ১৫ ফেব্রুয়ারি দুপুরে লোহাগড়া উপজেলা পরিষদ চত্বরে দিঘলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক লতিফুর রহমান পলাশকে (৪৮) গুলি করে ও কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।
এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় গত ১৭ ফেব্রুয়ারি রাতে নিহত পলাশের বড় ভাই জেলা পরিষদের সদস্য মুক্তিযোদ্ধা সাইফুর রহমান হিলু বাদী হয়ে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শরীফ মনিরুজ্জামান মনি, দিঘলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি স ম ওহিদুর রহমানসহ (চেয়ারম্যান প্রার্থী) ১৫ জনের নামে লোহাগড়া থানায় মামলা দায়ের করেন।