শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের দায়িত্বহীন প্রজ্ঞাপন : গোপালগঞ্জে তোলপাড়

47

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : গোপালগঞ্জের সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক অরুন চন্দ্র বিশ্বাসকে পবিত্র হজ্বব্রত পালনের উদ্দেশে মন্ত্রনালয় কর্তৃক পঞ্চাশ দিনের অর্ধগড় বেতনে অর্জিত ছুটি মঞ্জুরের বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। গত ৩০ এপ্রিল সোমবার রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ, সরকারি কলেজ-৪ শাখা থেকে ছুটি মঞ্জুরের এই অদ্ভুত আদেশ জারি করা হয়।
শিক্ষা মন্ত্রনালয় থেকে জারিকৃত ৩৭. ০০. ০০০০. ০৬৯. ০৮. ০১০. ১৭. ৪৩৪ নং স্বারকের ওই প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয় যে বিসিএস (সাধারন শিক্ষা) ক্যাডারের নিম্নবর্নিত কর্মকর্তাকে তার নামের পাশে উল্লেখিত দেশে ২৫.০৭.২০১৮ তারিখ হতে ১২.০৯.২০১৮ তারিখ পর্যন্ত পঞ্চাশ দিনের অথবা দায়িত্বভার হস্তান্তরের তারিখ হতে পঞ্চাশ দিনের অর্ধগড় বেতনে অর্জিত ছুটি মঞ্জুর করা হয়। এরই মধ্যে আদেশটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ায় এ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়েছে। যদিও গত রাতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আদেশের কপিটি ওয়েবসাইটে আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। এদিকে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের ওই প্রজ্ঞাপনে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করার মতো এ ধরনের একটি স্পর্শকাতর বিষয়ে ভুল করে দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিয়েছে বলে মনে করছেন সচেতন মহল।
এ ব্যাপারে অধ্যাপক অরুন চন্দ্র বিশ্বাস (১৭৯৫) জানান, তিনি ভারতে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিভিন্ন তীর্থস্থানে ভ্রমনের জন্য আগামী ১ জুন থেকে ২১ জুন পর্যন্ত অবকাশকালীন ছুটির আবেদন করে ছিলেন। শিক্ষা মন্ত্রনালয় ভুলক্রমে তীর্থ স্থানের পরিবর্তে পবিত্র হজ্বব্রত পালনের জন্য প্রজ্ঞাপনজারী করেছে বলে তিনি মনে করছেন। এছাড়া তার ছুটির ধরনও অবকাশ কালীনের ছুটির পরিবর্তে অর্ধগড় বেতনে ছুটি মঞ্জুর করা হয়েছে।
তিনি আরো জানান কলেজ বন্ধ থাকায় বিষয়টি তিনি কর্তৃপক্ষকে জানাতে পারেননি। বৃহস্পতিবার কলেজ খুললে অধ্যাক্ষের সাথে পরামর্শ করে বিষয়টি তিনি সংশোধনের জন্য কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে মন্ত্রনালয়ে চিঠি দিবেন।
এ ব্যাপারে গোপালগঞ্জ সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজের উপাধ্যক্ষ সরদার নুরুল ইসলাম বলেন, শিক্ষা মন্ত্রনালয় ভুলবশত তীর্থ স্থানের পরিবর্তে পবিত্র হজ্বব্রত পালনের জন্য ছুটি মঞ্জুর করেছে। অধ্যাপক অরুন চন্দ্র বিশ্বাস সংশোধনের আবেদন করলে বিষয়টি সমাধান হয়ে যাবে।
ওই একই আদেশে নারায়ণগঞ্জের সরকারি তোলারাম কালেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক নাছিমা বেগমকেও ওমরাহ হজ পালনের জন্য ১ জুন থেকে ২১ জুন অথবা দায়িত্ব হস্তান্তরের তারিখ থেকে ২১ দিন ছুটি মঞ্জুর করা হয়। এ বিষয়ে নাছিমা বেগম বলেন, আমার আদেশের সঙ্গে অরুন চন্দ্র বিশ্বাসকেও ছুটি দেওয়া হয়েছে। দুজনের একসঙ্গে আদেশ হলেও আমি তাঁকে চিনি না। আমি মনে করেছি, হয়তো তিনি ধর্ম পরিবর্তন করেছেন।
এ ব্যাপারে উপসচিব মুরশিদা শারমিনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিষয়টি আমার মনে পড়ছে না। অফিসে গিয়ে জেনে আপনাকে জানাতে পারব।